সাংবাদিক প্রবেশে পাকিস্তানের বাধা, তথ্য গোপনের অভিযোগ ভারতেরবালাকোটে জইশ-ই-মোহাম্মদের প্রশিক্ষণ ঘাঁটিতে সাংবাদিকদের প্রবেশের অনুমতি না দিয়ে পাকিস্তান প্রকৃত সত্য লুকাতে চাইছে বলে দাবি

গত মাসে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় পাকিস্তান ভিত্তিক জঙ্গিদল জইশ-ই-মোহাম্মদের আত্মঘাতী বোমা হামলায় ৪০ ভারতীয় জওয়ান নিহত হয়।

প্রতিশোধ নিতে ভারতীয় বিমানবাহিনী পাকিস্তানে অনুপ্রবেশ করে জঙ্গিদলটির প্রশিক্ষণ ঘাঁটিতে ব্যাপক বোমাবর্ষণ করে বহু জঙ্গিকে হত্যার দাবি করে।

শুরু থেকেই বোমাবর্ষণে হতাহতের খবর অস্বীকার করে পাকিস্তান। এখন ভারতের বিরোধী দলগুলোও বোমাবর্ষণে জঙ্গি হত্যার প্রমাণ চাইছে। তাদের অভিযোগ, আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের আগে দলের জনপ্রিয়তা বাড়াতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর দল বিজেপি নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন জোট সশস্ত্র বাহিনীকে ব্যবহার করছে।

সম্প্রতি প্রকাশিত কয়েকটি স্যাটেলাইট ইমেজেও জইশ-ই-মোহাম্মদের ঘাঁটিতে বোমাবর্ষণের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। বরং সেখানে পাহাড়ের উপর জঙ্গিদলটির বানানো কয়েকটি মাদ্রাসা ভবন অক্ষত অবস্থায় দেখা গেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত হতে গত বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সের একটি দল ওই পাহাড়ে উঠার চেষ্টা করলে ‘নিরাপত্তা উদ্বেগ’র কথা বলে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী তাদের বাধা দেয়।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভিশ কুমার এ বিষয়ে বলেন, “প্রকৃত সত্যি হচ্ছে, পাকিস্তান এখন সাংবাদিকদের ঘটনাস্থলে যেতে দিচ্ছে না। যা অর্থ, তাদের অনেক কিছু লুকানোর আছে।”

ভাতীয় বিমানবাহিনীর অভিযান সফল ছিল বলে যে দাবি দেশটির সরকার করছে তার পুনরাবৃত্তি করে তিনি বলেন, ভারতের বিমান অভীষ্টসিদ্ধি করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য