আনুষ্ঠানিকভাবে আইএনএফ চুক্তি স্থগিত করলো রাশিয়ামধ্যম পাল্লার পরমাণু অস্ত্র ধ্বংস সংক্রান্ত আইএনএফ চুক্তিতে রাশিয়ার অংশগ্রহণ আনুষ্ঠানিকভাবে স্থগিত করেছে মস্কো। সোমবার রুশ প্রেসিডেন্টের দফতর ক্রেমলিনের ওয়েবসাইটে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এতে বলা হয়, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এ সংক্রান্ত একটি ডিক্রিতে স্বাক্ষর করেছেন।

ক্রেমলিনের দাবি, যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এই চুক্তি লঙ্ঘনের কারণে রাশিয়াও পাল্টা ব্যবস্থা নিয়েছে। যতদিন আমেরিকা এই দ্বিপক্ষীয় চুক্তি লঙ্ঘন করবে ততদিন এর প্রতি রাশিয়া নিজের প্রতিশ্রুতি পালন স্থগিত রাখবে।

যুক্তরাষ্ট্র দুইটি ক্ষেত্রে আইএনএফ চুক্তি লঙ্ঘন করেছে বলে অভিযোগ করেছে রাশিয়া। দেশটি বলেছে, প্রথমত, ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী ব্যবস্থা তৈরির জন্য আমেরিকা মধ্যম পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র প্রযুক্তি ব্যবহার করছে যা আইএনএফ চুক্তির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। দ্বিতীয়ত, মার্কিন সরকার এমন একটি আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নির্মাণ করেছে, যা দিয়ে টমাহক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা সম্ভব। এটি করতে গিয়েও আইএনএফ চুক্তি লঙ্ঘন করেছে ওয়াশিংটন।

১৯৮৭ সালে বহুল আলোচিত এ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যান এবং সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের সর্বশেষ প্রেসিডেন্ট মিখাইল গর্বাচেভ।

২০১৯ সালের ১ ফেব্রুয়ারি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ঘোষণা দেন, আমেরিকা আর এই চুক্তি মানবে না। পরদিন ২ ফেব্রুয়ারি রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনও আইএনএফ চুক্তি স্থগিতের পাল্টা ঘোষণা দেন। শেষ পর্যন্ত ৪ মার্চ সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে তিনি এ সংক্রান্ত ডিক্রিতে সই করলেন।

স্নায়ুযুদ্ধ চলাকালে ১৯৮৭ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যান ও সোভিয়েত নেতা মিখাইল গর্বাচেভের মধ্যে ইন্টারমিডিয়েট রেঞ্জ নিউক্লিয়ার ফোর্সেস ট্রিটি বা আইএনএফ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। চুক্তির আওতায় ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ৫০০ হতে সাড়ে পাঁচ হাজার কিলোমিটার পাল্লার পরমাণুবাহী ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি নিষিদ্ধ করা হয়। পরে দুই দেশ প্রায় দুই হাজার ৭০০ মধ্যম পাল্লার পরমাণুবাহী ক্ষেপণাস্ত্র ধ্বংস করে। সূত্র: পার্স টুডে, আল জাজিরা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য