বীরগঞ্জে কমিউনিটি ক্লিনিকে চিকিৎসা সরঞ্জামাদি বিতরণবীরগঞ্জ (দিনাজপুর) সংবাদাতাঃ জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্য সেবা পৌছে দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগ কমিউনিটি ক্লিনিক। যা বিশ্বব্যাপী প্রসংশিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর গৃহিত এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে বীরগঞ্জ ও বিরল উপজেলায় তাকেদা হেলদি প্রকল্পের মাধ্যমে সহযোগিতা দিয়ে আসছে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ।

ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ তাকেদা হেলদি ভিলেজ প্রকল্প বাংলাদেশে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ ও বিরল উপজেলার ২৭টি কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে মা ও শিশু স্বাস্থ্য উন্নয়নে ৮১টি গ্রামে নিরাপদ মাতৃত্ব, শিশু স্বাস্থ্য ও পুষ্টি কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে আসছে।

এ ছাড়াও সিটিজেন ভয়েস এন্ড এ্যাকশন এর আওয়তায় উপজেলার ৫টি কমিউনিটি ক্লিনিকে অতি প্রয়োজনীয় ১০ধরণের চিকিৎসা সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে। মা ও শিশু মৃত্যু রোধে বাড়ীতে নয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে গর্ভবর্তী মায়েদের যেন নিরাপদ প্রসব সেবা নিশ্চিত করণের লক্ষ্যে কাজ করে আসছে।

এ বছর ২১লক্ষ ৬৯হাজার ৫০১টাকা ব্যয়ে বীরগঞ্জ উপজেলায় ৩টি এবং বিরল উপজেলায় ৩টি কমিউনিটি ক্লিনিকে নারী-পুরুষের জন্য পৃথক টয়লেট এবং সুপেয় পানির ব্যবস্থা করে।

শনিবার সকালে মা ও শিশুর স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করণের লক্ষ্যে উপজেলার বলরামপুর কমিউনিটি ক্লিনিক ব্যবস্থাপনা কমিটির আয়োজনে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ তাকেদা হেলদি ভিলেজ প্রকল্প এবং উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের সহযোগিতায় আনুষ্ঠানিক ভাবে বীরগঞ্জের বলরামপুর, ঘোড়াবান্দ, রাজিবপুর কমিউনিটি ক্লিনিকে টয়লেট উদ্বোধন ও ৫টি কমিউনিটি ক্লিনিকে চিকিৎসা সরঞ্জামাদি বিতরণ করে জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুস।

বলরামপুর কমিউনিটি ক্লিনিক ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি এবং নিজপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মোঃ জিয়াউর রহমানের সভাপতিত্বে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ তাকেদা হেলদি ভিলেজ প্রকল্প সমন্বয়কারী রিচার্ড তাপস দাসের সঞ্চালনায় এক আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুস। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ মোঃ জাহাঙ্গীর কবির, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ বীরগঞ্জ এপি ম্যানেজার মানুয়েল হাসদা, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ আঞ্চলিক সমন্বয়কারী নর্দান বাংলাদেশ রিজিওন মোঃ আবু হুসাইন, সুজালপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ মহেশ চন্দ্র রায় প্রমুখ।

এ সময় অতিথিবৃন্দ আমি পারি শিশুর প্রতি শারিরিক সহিংসতা বন্ধ করতে বাড়ীতে, কর্মক্ষেত্রে ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কাম্পেইনে অংশগ্রহণ করেন এবং শপথ বাক্য পাঠ করেন। এর আগে শিশু ফোরামের সদস্যদের আয়োজনে নৃত্যান্ষ্ঠুাটি অতিথিদের বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য