সোমালিয়ায় মার্কিন বিমান হামলায় ৩৫ চরমপন্থী নিহতউত্তর-পূর্ব আফ্রিকান দেশ সোমালিয়ার ইথিওপিয়ান সীমান্তের নিকটবর্তী স্থানে মার্কিন বিমান হামলায় জঙ্গিগোষ্ঠী আল-শাবাবের ৩৫ চরমপন্থী নিহত হয়েছেন।

রোববার (২৪ ফেব্রুয়ারি) আল-কায়েদার সংযুক্ত এই জঙ্গিরা মধ্য হিরান প্রদেশের বেলেদওয়েনে থেকে ৩৭ কিলোমিটার পূর্ব দিকের একটি অঞ্চলে যাওয়ার সময় তাদের ওপর এ বিমান হামলা চালানো হয় বলে আফ্রিকায় নিয়োজিত মার্কিন সেনা কমান্ড জানিয়েছে।

২০১৬ সালে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর থেকেই আল-শাবাবের ওপর মার্কিন বিমান হামলা বেড়ে গেছে। এ বছরেই প্রায় ২২টি বিমান হামলা চালানো হয়েছে।

২০১৮ সালে সোমালিয়ায় ৫০টি মার্কিন বিমান হামলা চালানো হয়েছে। এসব হামলার মধ্যে কিছু ইসলামী রাষ্ট্রকেও উদ্দেশ্য করে করা হয়েছিল। সাম্প্রতিক সময়ে আল-শাবাবের সঙ্গে তাদেরও সতর্ক করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ এবং বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মধ্য ও দক্ষিণ সোমালিয়া এবং রাজধানী মোগাদিশুতে ভয়াবহ হামলা চালানো জঙ্গিগোষ্ঠী আল-শাবাবকে প্রতিহত করতে আরও অভিযান চালানো হবে।

গত মাসে পার্শ্ববর্তী দেশ কেনিয়ার একটি বিলাশবহুল হোটেলে হামলার দায় স্বীকার করে এই জঙ্গিগোষ্ঠীটি। পাশাপাশি সোমালিয়ার ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ ট্রাক বোমা হামলাও তারাই চালিয়েছিল। ২০১৭ সালের সেই হামলায় প্রায় ৫০০ জন নিহত হয়েছিলেন।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্র বলছে, তারা সোমালিয়ার সৈন্যবাহিনীর সঙ্গে এক হয়ে কাজ করবে।

সোমালিয়ায় নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আফ্রিকান ইউনিয়ন মিশন এবং কেনিয়া ও ইথিওপিয়ার সৈন্যদের সঙ্গে কাজ করছে মার্কিন সেনাবাহিনী।

যদিও আফ্রিকান ইউনিয়ন মিশন ইতোমধ্যে সোমালিয়া থেকে তাদের সৈন্য প্রত্যাহার করে নিতে শুরু করেছে। তবে মার্কিন সৈন্যবাহিনী এবং অন্যান্যরা বলছে, সোমালিয়ার সৈন্যবাহিনী এখনও পুরোপুরি প্রস্তত নয়।

সোমালিয়ায় নিষেধাজ্ঞা পর্যবেক্ষণে নিয়োজিত জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশটির সৈন্যবাহিনীর পর্যাপ্ত পরিমাণে অস্ত্র নেই এবং তাদের বেতনও অনেক কম।

তারা আরও বলেন, অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে, কিছু অর্থের জন্য সৈন্যরা অস্ত্র বা ইউনিফর্ম বিক্রি করে দেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য