উৎসবের মাধ্যমে দখলমুুক্ত হলো নীলফামারীর দেওনাই নদীদীর্ঘদিন হতে ইজারার নামে কিছু দখলদার গায়ের জোরে নীলফামারীর ডোমার উপজেলার উপর বহমান দেওনাই নদীটি দখল করে মাছ চাষ করছিল।

আর ওই নদীর উপর নির্ভরশীল মৎস্যজীবীরা নদীতে মাছ ধরতে গেলেই দখলদাররা তাদের মারধর দিয়ে তাড়িয়ে দিয়ে মামলায় জড়িয়ে ফেলে। এতে প্রায় শতাধিক জেলে পরিবার হারিয়ে ফেলে তাদের বাপ-দাদার রেখে যাওয়া একমাত্র কর্ম।

এরই প্রেক্ষিতে এলাকাবাসী জেলে পরিবারগুলোকে সাথে নিয়ে নদী দখলমুক্ত করতে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে অধসছিলেন।

এরই অংশ হিসাবে আজ শনিবার দুপুরে (২৩ ফেব্রুয়ারী) জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ডঃ মজিবুর রহমান হাওলাদার উপজেলার হরিণচড়া ইউনিয়নের শেওটগাড়ী এলাকার দেওনাই নদীর তীরে গিয়ে সহ¯্রাধিক এলাকাবাসী সাথে নিয়ে নদীটি দখল মুক্ত করার ঘোষনা দেন।

এ সময় হাজার হাজার মানুষ উপস্থিতিতে নদী দখলমুক্ত অনুষ্ঠান এক উৎসবে পরিনত হয়। দেওনাই নদী দখলমুক্ত করার পর নদীর পাশেই বেগম রোকেয়া বিশ^বিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ড. তুহিন ওয়াদুদের সভাপতিত্বে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মজিবুর রহমান হাওলাদার আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে এক আলোচনা সভায় অংশ নেন।

আলোচনা সভায় জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মজিবুর রহমান হাওলাদার বলেন, নদীর মালিক দেশের জনগন। কেউ দখল করতে চাইলে তা হতে দেওয়া হবে না। তিনি আরো বলেন, সারাদেশে নদী দখলমুক্ত ও রক্ষার কাজ শুরু হয়েছে। কিন্তু এভাবে হাজার হাজার সাধারন মানুষের নদী দখল মুক্ত উৎসব দেশের কোথাও হয় নাই। এটিই দেশে প্রথম। আমরা চাই সারা দেশের মানুষ এভাবেই নদী দখল মুক্ত করতে এগিয়ে আসুক।

আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জাতীয় নদী কমিশনের সার্বক্ষনিক সদস্য আলাউদ্দিন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শাহিনুর আলম, নীলফামারী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবদুল আল মামুন, ডোমার উপজেলায় নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ফাতিমা প্রমূখ। দেওনাই নদী সুরক্ষা কমিটির আহ্বায়ক আবদুল ওয়াদুদ জানান, দীর্ঘদিন হতে কিছু প্রভাবশালী নদীর মাঝখানে বাঁশের চাটাই দিয়ে মাছ চাষ করে নদী দখল করে রাখে।

আর জেলেরা মাছ ধরতে গেলে তাদের মারধর দিয়ে তাদেরেই নামে মিথ্যা মামলা দেয়। তখন আমরা এলাকাবাসী জেলেদের সাথে নিয়ে নদী দখলমুক্ত করতে মানববন্ধন, সভা, সমাবেশসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করি। সর্বশেষ আজ নদীটি দখল মুক্ত হলো। আমরা আজ উৎসবের মাধ্যমে নদীটি দখলমুক্ত করলাম।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য