দিনাজপুরে আবর্জনার দূর্গন্ধে নিঃশ্বাস নেওয়াই দায়দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর শহরের বড়বন্দর রেলবাজার মন্দির প্রঙ্গনে ময়লা আর্বজনার দুর্গন্ধে নিঃশ্বাস নেওয়াই কঠিন হয়ে পড়েছে এলাকার বাসীর। একাধিক বার দিনাজপুর পৌরসভায় ধরনা দেওয়ার পরেও ময়লা অপসারণ না করায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে মন্দিরে পূজো করতে আসা ভক্তবৃন্দসহ এলাকাবাসী।

২০ ফেব্রুয়ারী বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় দিনাজপুর শহরের বড়বন্দর রেল বাজার মন্দির প্রাঙ্গণে গিয়ে দেখা যায় ময়লা আবর্জনার আবর্জনার স্তুপ। ময়লা আবর্জনার দূর্গন্ধে নিঃশ্বাস নেওয়াই কঠিন হয়ে পড়েছে।

বড়বন্দর মন্দির কমিটির নেতৃবৃন্দ বলেন, পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলমকে একাধিকবার জানানোর পরও তিনি ময়লা আবর্জনা অপসারন না করায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে এলাকার মানুষ।

ফকিরপাড়া নিবাসী আব্দুল খালেক, বড়বন্দর নিবাসী বকুল চন্দ্র, বিজেন্দ্র নাথ সরকার, রফিকুল আমিন, নতুনপাড়া নিবাসী জাকির হোসেন, আরাফাত রহমান সহ অনেকে ক্ষীপ্ত হয়ে বলেন, দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র পৌরবাসীর টেক্সের অর্থ কোন খাতে খরচ করছেন তা পৌরবাসী বুঝতে পারছে না।

পৌরবাসীকে প্রতিনিয়তই ময়লা আবর্জনার দূর্গন্ধ ও মশার কামর খেয়েই দিন রাত পার করতে হচ্ছে।

ভুক্তভোগী এলাকাবাসী জানান, শুধুমাত্র রেল বাজার থেকেই পৌরসভা বছরে ৪০ লক্ষ টাকা আয় করে।

এছাড়াও এলাকাবসীর বাসতবাড়ী, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে কোটি কোটি টাকা পৌরসভা টেক্স আদায় করছে। পৌরসভা ময়লা আবর্জনা পরিস্কার না করে কোটি কোটি টাকা কোন খাতে খরচ করছেন।

ভুক্তভোগীরা আরো বলেন, এভাবে চলতে থাকলে পৌরকর ও টেক্স দেয়া বন্ধ করে দেবে পৌরবাসী।

দিনাজপুর পৌর এলাকার অনেক স্থানে এই অবস্থা দেখা গেছে। বিশেষ করে, অরবিন্দ শিশু হাসপাতালের সামনে, শহরের ষষ্টিতলা রেল ঘুমটি ও বিজিবি ক্যাম্পের সামনে, সুইহারিসহ ঘুরে একই পরিস্থিতি লক্ষ করা গেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য