সৌদি যুবরাজকে স্বাগত জানাতে প্রটোকল ভাঙলেন মোদীনয়া দিল্লিতে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানকে ব্যক্তিগতভাবে স্বাগত জানাতে সরকারি প্রটোকল ভেঙেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

সাধারণত বিদেশি কোনো অতিথিকে স্বাগত জানাতে প্রধানমন্ত্রীর বিমানবন্দরে যাওয়ার কথা না, তার প্রতিনিধি হিসেবে কোনো কর্মকর্তা বা সরকারের কম গুরুত্বপূর্ণ কোনো মন্ত্রীর যাওয়ার কথা।

কিন্তু মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় সৌদি যুবরাজ নয়া দিল্লির বিমানবন্দরে পৌঁছলে সেখানে উপস্থিত মোদী তাকে স্বাগত জানান, খবর এনডিটিভি, বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

যুবরাজ বিমান থেকে নেমে আসার পর তাকে জড়িয়ে ধরে উষ্ণ অভ্যর্থনায় বরণ করেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী।

“দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের এক নতুন অধ্যায়,” টুইটারে দুই নেতার করমর্দনের একটি ছবি দিয়ে এ মন্তব্য করেছেন ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভীশ কুমার। ‘প্রটোকল ভাঙার’ জন্য প্রধানমন্ত্রী মোদীর প্রশংসাও করেছেন তিনি।

এর আগে পাকিস্তান সফরেও উষ্ণ অভ্যর্থনা পেয়েছিলেন সৌদি ক্রাউন প্রিন্স। দেশটিতে দুই দিনের সফর শেষ তিনি ভারতে যান।

বুধবার মোদীর সঙ্গে যুবরাজ মোহাম্মদের বৈঠকের কথা রয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ভয়াবহ এক প্রাণঘাতী হামলার পর পাকিস্তানকে দায় দেয় ভারত। এ ঘটনা নিয়ে উত্তেজনা চলার মধ্যেই প্রতিবেশী দেশ দুটি সফরে এলেন সৌদি যুবরাজ।

এই আঞ্চলিক উত্তেজনা তার এ সফরটিতে নতুন মাত্রা যুক্ত করেছে।

নিজেদের মধ্যে উত্তেজনা চললেও দুটি দেশই সৌদি আরবের সঙ্গে সম্পর্ক আরও জোরদার করার জন্য মুখিয়ে আছে। এরই মধ্যে পাকিস্তানের সঙ্গে ২০ বিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগ চুক্তি করেছেন যুবরাজ মোহাম্মদ। ভারতও বিনিয়োগ চুক্তির আশায় আছে।

সৌদি আরব, ভারতে অপরিশোধিত তেলের শীর্ষ যোগানদাতা দেশ। জ্বালানি খাত ছাড়াও দেশ দুটির সম্পর্ক আরও বিভিন্ন দিকে বিস্তৃত হয়েছে।

দুদেশের মধ্যে কৌশলগত অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠায় দুই সরকার একমতও হয়েছে বলে সম্প্রতি ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

সৌদি রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম ও ভারতীয় এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সফরে সৌদি যুবরাজ তাদের জাতীয় বিনিয়োগ ও অবকাঠামো তহবিলে প্রাথমিক বিনিয়োগের ঘোষণা দিবেন বলে প্রত্যাশা করছে ভারত।

আপাত সার্বভৌম এই তহবিল ভারতের বন্দর ও মহাসড়ক নির্মাণকাজে ব্যবহার করা হবে।

ভারতে সফর শেষে সৌদি যুবরাজের চীন, মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়া সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে।

অক্টোবরে ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশুগজি খুন হন। এই খুনের ঘটনাকে ঘিরে দেশ-বিদেশে প্রচণ্ড চাপে আছেন যুবরাজ মোহাম্মদ। ওই ঘটনার পর দক্ষিণ ও পূর্ব এশিয়ায় এটিই তার প্রথম সফর।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য