মোঃ লিহাজ উদ্দীন মানিক, বোদা (পঞ্চগড়) থেকেঃ পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলা আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী অধ্যাপক ফারুক আলম টবি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন।

মঙ্গলবার প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিনে প্রতিদ্বন্দী কোন প্রার্থী না থাকায় আওয়ামীলীগের দলীয় একক প্রাথী ফারুক আলম টবি বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন। গত সোমবার চেয়ারম্যান পদে দুই জন স্বতন্ত্র প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেয়ায় ফারুক আলম টবি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হচ্ছেন।

উপজেলা সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন অফিসার বিজয় চন্দ্র বর্মন জানান, বোদা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১১ ফেব্রুয়ারি ৫ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। এর মধ্যে যাচাই বাছাইকালে ২ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়। এর ফলে ৩ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীকে বৈধ ঘোষণা করা হয়।

গত সোমবার বিকেলে স্বতন্ত্র প্রার্থী বোদা উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও বোদা বাজার বণিক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব আজাহার আলী এবং বোদা পৌর যুবদলের সাবেক আহবায়ক এ্যাডঃ জাকির হোসেন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। ফলে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী হিসেবে একমাত্র উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থী ফারুক আলম টবি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হচ্ছেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও পঞ্চগড় জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ আশরাফুল আলম জানান, বোদা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা প্রার্থীর মধ্যে দুই জন প্রার্থী তাদের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেছেন। এখন মাত্র একজন প্রার্থী আছেন। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করার আগে কিছু আনুষ্ঠানিকতা রয়েছে। আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হবে।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ফারুক আলম টবি বোদা উপজেলা শহরে পাথরাজ ডিগ্রী কলেজের অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ছিলেন। সম্প্রতি কলেজটি সরকারি হলেও শিক্ষকেরা সরকারি হিসেবে গেজেটভূক্ত হয়নি। তার পরও নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ক্ষেত্রে ঝামেলা এড়াতে গত ৭ ফেব্রুয়ারি তিনি কলেজের সহকারী অধ্যাপকের পদ থেকে পদত্যাগ করেন। তিনি বোদা পাইলট মডেল স্কুল এন্ড কলেজ থেকে ১৯৭৯ এসএসসি পাস সালে করেন।

১৯৮১ সালে রংপুর কারমাইকেল কলেজ থেকে এইচএসসি, একই কলেজ থেকে ১৯৮৩ সালে অর্থনীতি বিষয়ে সম্মান এবং ১৯৮৪ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একই বিষয়ে এম এ পাস করেন। তিনি বোদা পাথরাজ মহাবিদ্যালয়ে অর্থনীতি বিষয়ে প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন। ছাত্র জীবনে উপজেলা পর্যায়ে ছাত্রলীগের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন।

২০১২ সাল থেকে তিনি বোদা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। অধ্যাপক ফারুক আলম টবির দাদা ভাষা সৈনিক মরহুম ডা. মজাহার হোসেন রংপুর জেলা আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ছিলেন। তার ছেলে অথাৎ টবির পিতা মরহুম মোসাদ্দেকুল আলম খোকা রংপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন এবং ভাষা আন্দোলনে প্রত্যক্ষ ভাবে অংশ নেন একই সময় তিনি ভাষা সৈনিক হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেন। টবির দুই চাচা বীর মুক্তিযোদ্ধা। আর তার ছোট ভাই অমিয় আলম অমি বোদা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য