দিনাজপুরে হাবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের ক্লাস ও পরীক্ষা চালুর দাবিতে মহাসড়ক অবরোধদিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) শিক্ষার্থীরা ক্লাস ও পরীক্ষা চালুর দাবিতে চার ঘণ্টা মহাসড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছে।

শনিবার (১৬ ফেব্রুয়ারী) সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়কে বসে এ কর্মসূচি পালন করে।

এর আগে শিক্ষার্থীরা ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ও শিক্ষক’ লেখা একটি কুশপুত্তলিকা দাহ করে। পরে তারা রাস্তার ওপর বসে বিভিন্ন স্লোগান দেয়। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের সড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিল। তবে বিকল্প রাস্তা দিয়ে যানবাহন চলাচল করে।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানায়, গত ১৪ নভেম্বর থেকে টানা প্রায় ৩ মাস বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও প্রশাসন নিজ নিজ অবস্থানে অনড় থাকায় তারা বিপাকে পড়েছেন। কবে তাদের ক্লাস-পরীক্ষা চালু হবে তার কোনও নিশ্চয়তা নেই। ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ থাকায় ইতিমধ্যেই শিক্ষার্থীরা সেশনজটে পড়েছেন।

এভাবে চলতে থাকলে তাদের ভবিষ্যত অন্ধকার হয়ে যাবে। শিক্ষার্থীরা দ্রুত ক্লাস-পরীক্ষা চালুর জন্য প্রশাসন ও সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, আমরা নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান। গত ৩ মাস ধরে ক্লাস-পরীক্ষা হচ্ছে না। আমরা অর্থনৈতিকভাবেও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। এই ক্ষতিপূরণ কে দেবে। কর্তৃপক্ষের অদক্ষতা এবং আদর্শহীনতায় সংকটে পড়েছি আমরা। তাই পড়ার টেবিল ছেড়ে আমাদের রাস্তায় আসতে হয়েছে।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. খালেদ হাসান জানান, এরইমধ্যে শিক্ষকদের আন্দোলন নিয়ে একাধিকবার আলোচনা হয়েছে। কিন্তু তারা যে দাবি জানিয়েছেন তা অযৌক্তিক এবং মেনে নেওয়ার মত না। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চার সদস্য আসছেন। তারা শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করে চলমান সংকট নিরসন করবেন। একই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক বিষয়গুলো নিয়ে ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। কমিটির সদস্যরা শিগগির তদন্ত করবেন।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ১৪ নভেম্বর থেকে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) ৫৭ জন সহকারী অধ্যাপক শিক্ষকদের লাঞ্ছিত করার বিচার, বেতন বৈষম্য দূর করা ও নারী শিক্ষিকদের শ্লীলতাহানিসহ কয়েকটি দাবিতে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধরেখে আন্দোলন করছেন। তাদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামও ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রেখে আনোদালনে যোগ দিয়েছেন।

এর ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিয়ারিং অনুষদ ও বিজ্ঞান অনুষদসহ কয়েকটি বিভাগের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে। এর আগে ক্লাস ও পরীক্ষায় ফেরার দাবিতে প্রশাসনিক এবং একাডেমিক ভবনে তালা ঝুলানো ও মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে শিক্ষার্থীরা। এ নিয়ে শিক্ষকরা ও প্রশাসন একাধিকবার আলোচনায় বসলেও কোন সমাধান হয়নি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য