02 17 19

রবিবার, ১৭ই ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ইং | ৫ই ফাল্গুন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১১ই জমাদিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী

Home - আন্তর্জাতিক - যুক্তরাষ্ট্রে অচলাবস্থা এড়াতে আইনপ্রণেতাদের মধ্যে চলমান আলোচনা থমকে গেছে

যুক্তরাষ্ট্রে অচলাবস্থা এড়াতে আইনপ্রণেতাদের মধ্যে চলমান আলোচনা থমকে গেছে

যুক্তরাষ্ট্রে অচলাবস্থা এড়াতে আইনপ্রণেতাদের মধ্যে চলমান আলোচনা থমকে গেছেসীমান্ত নিরাপত্তা নিয়ে সমঝোতায় পৌঁছানো ও সরকারের আরেকটি অচলাবস্থা এড়ানোর লক্ষে যুক্তরাষ্ট্রের রিপাবলিক ও ডেমোক্রেট আইনপ্রণেতাদের মধ্যে চলমান আলোচনা থমকে গেছে।

App DinajpurNews Gif

মধ্যস্থতাকারীরা সোমবারের মধ্যে একটি চুক্তিতে পৌঁছে প্রস্তাবাকারে তা শুক্রবারের মধ্যে পাস করাতে চাইছিলেন; কারণ যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘদিন ধরে চলা আংশিক অচলাবস্থা অবসানে ২৫ জানুয়ারিতে হওয়া তিন সপ্তাহের চুক্তিটির সময়সীমা শুক্রবার শেষ হবে।

নতুন কোনো সমঝোতা চু্ক্তি ছাড়া শুক্রবারের সময়সীমা পার হলে ফের আংশিক অচলাবস্থায় পড়বে যুক্তরাষ্ট্র সরকার। এর আগে কাটানো একটানা ৩৫ দিন আংশিক অচলাবস্থা একটি রেকর্ড।

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল তোলার জন্য প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দাবিকৃত অর্থবিলই দুই পক্ষের মতভেদের কেন্দ্রে অবস্থান করছে বলে খবর বিবিসি, বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

অভিবাসীদের আটক করার নীতি নিয়ে ডেমোক্রেট ও রিপাবলিকান আইনপ্রণেতাদের মধ্যে বিরোধের পর চলমান আলোচনা থমকে যায় বলে রোববার জানিয়েছেন রিপাবলিকান সিনেটর রিচার্ড শেলবি। আলোচনায় রিপাবলিকানদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন তিনি।

ডেমোক্রেটরা চায় মার্কিন ইমিগ্রেশন এন্ড কাস্টমস এনফোর্সমেন্টের (আইসিই) ডিটেনশন সেন্টারগুলোতে যে পরিমাণ বিছানা আছে তা কমানো হোক এবং আইসিই কর্মকর্তারা ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও যারা অবস্থান করছে তাদের বদলে যেসব অভিবাসীর বিরুদ্ধে অপরাধের রেকর্ড আছে তাদের আটক করুক।

এসব শর্তের বিনিময়ে রিপাবলিকানদের সীমান্ত দেয়ালের জন্য কিছু অর্থ ছাড়ের প্রস্তাব দিয়েছে তারা। কিন্তু তা ট্রাম্পের প্রস্তাবিত সীমান্ত দেয়াল নির্মাণের জন্য যে অর্থ প্রয়োজন (৫.৭ বিলিয়ন ডলার) তার চেয়ে অনেক কম।

রোববার ফক্স নিউজকে শেলবি বলেছেন, “আমরা সেখানে পৌঁছতে পারব বলে মনে হচ্ছে না। চুক্তির সম্ভাবনা ৫০-৫০। অচলাবস্থার অপচ্ছায়া সবসময়ই ঘিরে ছিল।”

ডেমোক্রেট নেতারা মধ্যস্থতাকারীদের একটি সমঝোতায় পৌঁছতে বাধা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন ট্রাম্প।

গত মাসে তিনি আলোচনাকে ‘সময়ের অপচয়’ বলে মন্তব্য করেছিলেন।

নতুন করে ফের অচলাবস্থা শুরু হলে যুক্তরাষ্ট্রের হোমল্যান্ড সিকিউরিটি, পররাষ্ট্র, কৃষি ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ফের অর্থ সংকটে পড়বে। এর ফলে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রায় আট লাখ কর্মচারী বেতন পাবে না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য