জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা ॥ নীলফামারীর সৈয়দপুরে প্রশাসনের অভিযানে নকল সার তৈরী ও প্যাকেটিং করে বাজারজাতকারী একটি ফ্যাক্টরীর সন্ধান পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় নকল সার প্যাকেট করার সময় হাতে নাতে আটক ওই বাড়ির মালিক তথা নকল সার তৈরী ও বাজারজাতকারী এক ব্যক্তির ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ২ বছরের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। ঘটনাটি ঘটেছে ১০ ফেব্রুয়ারী রবিবার দুপুরে শহরের নয়াটোলা মহল্লায় পশু হাসপাতালের পিছনে।

জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম গোলাম কিবরিয়ার নেতৃত্বে উপজেলা কৃষি অফিসার হোমায়রা মন্ডল ও থানার অফিসার ইনচার্জ শাহজাহান পাশাসহ সঙ্গীয় ফোর্স অভিযান চালালে নয়াটোলা এলাকায় একটি সেমি পাকা টিনসেড বাড়িতে নকল সার তৈরী ও প্যাকেট করার সময় সাকিল ওরফে লাড্ডান নামে এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়।

এসময় ওই বাড়ি থেকে মেঘনা ফার্টিলাইজার কোম্পানীর ‘মেগাফুরান-৫ জি’ এর মোড়ক ও ঢাকার উত্তরার খান এগ্রো মার্কেটিং কোম্পানীর ‘জেডফুরান’ এর মোড়কে নকল সার প্যাকেটজাতকৃত অবস্থায় জব্দ করা হয়। পরে আটক ব্যক্তিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস এম গোলাম কিবরিয়া ভোক্তা অধিকার আইনে নকল সার উৎপাদন ও ভিন্ন কোম্পানীর মোড়কে প্যাকেটজাত করে বাজারে বিক্রির অভিযোগে দোষি সাব্যস্ত করে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ২ বছরের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন। এসময় আটক সাকিল ওরফে লাড্ডান তাৎক্ষনিক জরিমানার টাকা প্রদান করায় তাকে ছেড়ে দেয়া হয়।

সৈয়দপুর উপজেলা কৃষি অফিসার হোমায়রা মন্ডল জানান, সাকিল দীর্ঘদিন থেকে নকল সার তৈরী ও প্যাকেটিং করে বাজারজাত করছে এমন খবর পাওয়া মাত্রই ইউএনও স্যারকে নিয়ে অভিযান চালানো হয়েছে।

এলাকাবাসী সূত্রে আরও জানা যায় যে, সৈয়দপুর শহরের ছোট রেলঘুমটি এলাকায় সাকিলের একটি কীটনাশকের দোকান ছিল। সে দোকানটি আজ থেকে প্রায় ২০ বছর পূর্বে বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু তারপরও সাকিল ওই লাইসেন্সটি নিয়মিত নবায়ন করতো। আর তার ভিত্তিতেই সে নকল সার তৈরী ও বাজারজাত করার সুযোগ পেয়েছে। অথচ কৃষি অফিস তার দোকান না থাকলেও কেন লাইসেন্স নবায়ন করে দিতো তা প্রশ্ন সাপেক্ষ ব্যাপার।

অন্য একটি সূত্রের দাবি এই সাকিল স্বেচ্ছাসেবকলীগ সৈয়দপুর পৌর শাখার নেতা হওয়ায় তার মাধ্যমে ও কৃষি অফিসের যোগসাজশে সৈয়দপুর শহরের বেশ কয়েকজন কীটনাশক ও সার ব্যবসায়ী বিভিন্ন নামী দামি কোম্পানীর মোড়কে নকল সার প্যাকেটিং করে বাজারজাত করছে ব্যাপকভাবে। এতে যেমন কৃষকরা প্রতারিত হচ্ছেন তেমনি কোম্পানীগুলো ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। সেসাথে সরকার রাজস্ব প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত ৭ ফেব্রুয়ারী সাকিল ওরফে লাড্ডানকে সৈয়দপুর থানা পুলিশ আটক করে থানায় আনলেও ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেয়। এ নিয়ে শহরজুড়ে ব্যাপক কানাঘুষার সৃষ্টি হয়েছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য