ভারতে সোয়াইন ফ্লুতে ২২৬ জনের মৃত্যুভারতে নতুন করে ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী সোয়াইন ফ্লু ভাইরাস। দেশটির স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সম্প্রতি এ ভাইরাসে দেশজুড়ে ২২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে রাজস্থানের পরিস্থিতি সবচেয়ে শোচনীয়। সেখানে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে অন্তত ৮৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর বাইরে আরও দুই হাজার ২৬৩ জনের শরীরে এ ভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছে।

গুজরাটে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে অন্তত ৪৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। পাঞ্জাবে মারা গেছে ৩০ জন। ভারতের জাতীয় রোগ নির্ণয় কেন্দ্র বা এনসিডিসি জানিয়েছে, চলতি বছর এ দুই রাজ্যে ছয় হাজার ৬০০-এরও বেশি রোগী শনাক্ত করা হয়েছে।

ইতোমধ্যেই সোয়াইন ফ্লু মোকাবেলার পদক্ষেপ নিয়ে পর্যালোচনা শুরু করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের সচিব প্রীতি সুদানের নেতৃত্বে এ পর্যালোচনা বৈঠক অনুষ্ঠি হয়েছে। রাজস্থানে গণস্বাস্থ্য সংক্রান্ত একটি টিম পাঠানোর কথা জানিয়েছে মন্ত্রণালয়। এছাড়া গুজরাট, পাঞ্জাবেও টিম পাঠানো হয়েছে। সোয়াইন ফ্লু মোকাবেলায় রাজ্যগুলোকে সহায়তা করার জন্য এ সব টিম পাঠানো হয়েছে। সরকারিভাবে বিভিন্ন সংবাদপত্রে এই সংক্রান্ত সচেতনামূলক বার্তা দেওয়া হয়েছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, সোমবার শুধু রাজধানী দিল্লিতেই সোয়াইন ফ্লু আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৮৯৫। তার মধ্যে ৭১২ জন সাবালক এবং ১৮৩টি শিশু। মঙ্গলবার নতুন করে আরও ১০৪ জনের আক্রান্তের খবর পাওয়া যায়, যার মধ্যে ২০ জনই শিশু।

২০১৫ সালে ভারতে ৩৩ হাজার মানুষ সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত হয়েছিলেন। এদের মধ্যে এক হাজার ৯৯৪ জনের মৃত্যু হয়।

সোয়াইন ফ্লুর জন্য দায়ী এইচ১এন১ ভাইরাস। এটি হচ্ছে মানবদেহে ইনফ্লুয়েঞ্জার ভাইরাসের মতো এক ধরনের ভাইরাস যা প্রধানত শূকরের দেহে দ্রট্টু বংশবিস্তার করতে পারে। ২০০৯ সালে প্রথম মেক্সিকোয় এ ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঘটে। দ্রুত এটি বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত হওয়ার উপসর্গের মধ্যে জ্বর, মাথা ব্যথা, গলা ও শরীর ব্যথা, শ্বাসকষ্ট, ক্ষুদামন্দা ও আলস্য, ওজন কমে যাওয়া ইত্যাদি অন্যতম। সূত্র: এনডিটিভি, পার্সটুডে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য