উ কোরিয়া পারমাণবিক ক্ষমতা রক্ষার চেষ্টা করছেউত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক ও ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচী অটুট আছে এবং কোনো সামরিক আঘাতে এসব সক্ষমতা যেন ধ্বংস না হয় তা নিশ্চিত করতে দেশটি কাজ করছে বলে জাতিসংঘের পর্যবেক্ষদের এক গোপন প্রতিবেদনে দেখা গেছে।

জাতিসংঘের ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদের নিষেধাজ্ঞা কমিটির কাছে এ প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে, সোমবার রয়টার্স প্রতিবেদনটি দেখেছে বলে খবর দিয়েছে।

চলতি মাসেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের মধ্যে বৈঠকের কথা রয়েছে; দুই নেতার দ্বিতীয় এই বৈঠকের আগে নিরাপত্তা পরিষদে ওই প্রতিবেদনটি পেশ করা হয়েছে।

এর আগে ২০১৮ সালের জুনে সিঙ্গাপুরে এ দুই নেতার মধ্যে প্রথম বৈঠকে কিম পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের জন্য কাজ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন।

উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে তার লেনদেনে ‘অসাধারণ অগ্রগতি’ হয়েছে বলে ট্রাম্প যখন দাবি করছেন, তখন জাতিসংঘের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, “শনাক্ত করা অল্প সংখ্যাক পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র সংযোজন ও নির্মাণ স্থাপনাগুলোতে ‘ধ্বংসাত্মক হামলার’ আওতা থেকে রক্ষার লক্ষ্য নিয়ে পিয়ংইয়ং ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র সংযোজন ও পরীক্ষার জন্য বিমানবন্দরসহ বেসামরিক স্থাপনাগুলো ব্যবহার করছে।”

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, “ডিপিআরকে তার সংযোজন, গুদাম ও পরীক্ষার স্থানগুলো বিস্তৃত স্থানে ছড়িয়ে দিচ্ছে এমন প্রবণতার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ প্রমাণ পাওয়া গেছে।”

প্রতিবেদনে উত্তর কোরিয়ার দাপ্তরিক নাম ডেমোক্রেটিক পিপলস রিপাবলিক অব কোরিয়ার সংক্ষিপ্ত রূপ ডিপিআরকে ব্যবহার করা হয়েছে।

জাতিসংঘের ৩১৭ পৃষ্ঠার এই প্রতিবেদনটি শুক্রবার নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যদের কাছে পেশ করা হয়েছে।

এ প্রতিবেদনের বিষয়ে মন্তব্যের জন্য জাতিসংঘের উত্তর কোরিয়া মিশনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তাৎক্ষণিকভাবে তাড়া সাড়া দেয়নি বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য