মো: জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা ॥ নীলফামারীর সৈয়দপুরে ৪৮ শিক্ষার্থীর কাছে এসএসসি ফরম ফিলাপের মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিয়ে পরীক্ষার প্রবেশ পত্র না দেওয়ায় প্রজাপতি স্কুলের পরিচালক শাকিল আহমেদকে আটক করেছে পুলিশ।

শিক্ষার্থীরা ওই পরিচালকের বিরুদ্ধে ৩১ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে অভিযোগ দেওয়ায় ১ ফেব্র“য়ারী শুক্রবার ওই পরিচালকসহ সহকারী শিক্ষক আলিম হোসেনকেও আটক করা হয়।

জানা যায়, শহরের প্রজাপতি স্কুলের পরিচালক শাকিল আহমেদ তার নিজ প্রতিষ্ঠান থেকে ৯০ জন ও শহরের বিভিন্ন স্কুলের এসএসসি’র টেস্ট পরিক্ষায় অকৃতকার্য ৪৮ শিক্ষার্থীদের বিশেষ ব্যবস্থায় পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করেন।

এ নিয়ে তিনি শিক্ষার্থী প্রতি ৮ হাজার থেকে ১৪ হাজার টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নেন। সে সাথে কোচিং করার নামে শিক্ষার্থী প্রতি ৪ হাজার টাকা আলাদাভাবে আদায় করে। শিক্ষার্থীদের বলা হয় তাদের পরীক্ষা কেন্দ্র হবে দিনাজপুরে চিরিরবন্দর উপজেলার রানীরবন্দরের জেবি স্কুল এবং খোচনা স্কুল।

আদায়কৃত অর্থে ওই পরিচালক নিজ প্রতিষ্টানের শিক্ষার্থীদের বৃহস্পতিবার প্রবেশ পত্র প্রদান করলেও অকৃতকার্য শিক্ষার্থীদের পরিক্ষার প্রবেশপত্র প্রদানে ব্যর্থ হন তিনি। পরে প্রবেশপত্র না পাওয়া শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা উত্তেজিত হয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি ঘেরাও করে।

পরে পরিচালক শাকিল আহমেদ উপস্থিত হয়ে বলেন, শুক্রবারের মধ্যে এডমিট কার্ড দিতে না পারলে আপনাদের টাকা ফেরত দেয়া হবে। বৃহস্পতিবার রাতে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে অভিযোগ দাখিল করেন। এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে ১ ফেব্র“য়ারী পুলিশ শহরের হাতিখানায় অবস্থিত প্রজাপতি স্কুল সংলগ্ন পরিচালকের বাড়ী থেকে রাতে তাকে আটক করে পুলিশ।

পরিচালক শাকিল আহমেদ জানান, শহরের ক্যান্টবোর্ড উচ্চ বিদ্যালয়, সৈয়দপুর আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, আল ফারুক একাডেমী, কয়া গোলাহাট স্কুল এন্ড কলেজ, সৈয়দপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অনুরোধেই তাদের অকৃতকার্য শিক্ষার্থীদের বিশেষ ব্যবস্থায় পরীক্ষা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল।

শিক্ষার্থীদের কাছে যে অর্থ আদায় হয়েছিল তার ৩ ভাগের ১ ভাগ ওই সব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের প্রদান করা হয়েছে। বাকী অর্থ দিয়ে দিনাজপুরের চিরির বন্দর উপজেলার নওখৈর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ফরম ফিলাপ করা হয়েছে। কিন্তু অজ্ঞাত কারনে বোর্ড কর্তৃপক্ষ ওই সব শিক্ষার্থীদের প্রবেশ পত্র প্রদান করেন নি। তবে গত শুক্রবার প্রবেশ পত্র না দেওয়া শিক্ষার্থীদের কাছে আদায়কৃত অর্থ ফেরত দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম গোলাম কিবরিয়া জানান, প্রজাপতি স্কুলের পরিচালক শাকিল আহমেদের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থী প্রতারণার অভিযোগ পাওয়ায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর সাথে যদি অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরাও জড়িত থাকেন তাহলে তদন্ত স্বাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য