ভেনেজুয়েলা ছাড়ছে আরো হাজার হাজার মানুষনানা সংকটে জর্জরিত ভেনেজুয়েলায় নতুন করে ঘোরতর রাজনৈতিক সংকট দেখা দেওয়ায় দেশ ছেড়ে চলে যাচ্ছে আরো হাজার হাজার মানুষ।

কেউ কেউ মরিয়া হয়ে পরিবার-পরিজন ফেলে দেশ ছেড়ে যাচ্ছে। বেশিরভাগই যাচ্ছে প্রতিবেশী কলম্বিয়ায়। ভ্রমণের কোনো কাগজপত্র ছাড়াই অনেকে অবৈধভাবে সীমান্ত পেরিয়ে কলম্বিয়ায় ঢুকে পড়ছে।

তাদের কথায়, ভেনেজুয়েলায় “পরিস্থিতি ভয়াবহ”। সেখানে কোনো কিছুই নেই। সংকট থেকে বাঁচতে আর একটু খাবারের আশায় তাদের দেশ ছাড়তে হচ্ছে।

ভেনেজুয়েলার বিরোধীদলীয় নেতা হুয়ান গুইদো নিজেকে ‘অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট’ ঘোষণা করার পর দেশটিতে নতুন রাজনৈতিক সংকট সৃষ্টি হয়েছে এবং তা আরো জটিল আকার ধারণ করছে।

গত বুধবার ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো-বিরোধী এক বিশাল সমাবেশে বিরোধীদলীয় নেতা গুইদো নিজেকে নেতা ঘোষণা করার পর যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ব্রাজিল, আর্জেন্টিনাসহ আরো কয়েকটি দেশ তাকে স্বীকৃতি দিয়েছে। অপরদিকে, রাশিয়া, চীন, মেক্সিকো, তুরস্কসহ কয়েকটি দেশ মাদুরো সরকারের প্রতি তাদের সমর্থন জানিয়েছে।

গুইদো ‘অভ্যুত্থানের চেষ্টা করছেন’ বলে অভিযোগ করেছেন মাদুরো। ওদিকে, গুইদোও মাদুরোর বিরদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করছেন। এ পাল্টাপাল্টি অভিযোগে দেশটিতে রাজনৈতিক পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার পাশাপাশি মানবিক সংকটও কেটে যাওয়ার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।

ফলে বাধ্য হয়েই দলে দলে আরো মানুষ ভেনেজুয়েলা ছাড়ছে। যারা দেশ ছাড়ছে তাদের কিছুই নেই। কাপড় এমনকী অর্থ পর্যন্ত নেই। তাদেরকে ঘুমাতে হচ্ছে রাস্তায়। অনেকেই নিজ সন্তানদেরকে দেশে রেখে চলে এসেছেন তাদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভেনেজুয়েলার বিরোধীদলীয় নেতা হুয়ান গুইদোকে সমর্থন দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে দেশ ছাড়া এসব অসহায় মানুষের অনেকেই মনে করেন, ভেনেজুয়েলায় বর্তমান সরকারের ক্ষমতা থেকে সরে যাওয়া দরকার। পরিস্থিতির পরিবর্তন ঘটার জন্য দরকার একটি নতুন সরকার। নাহলে পরিস্থিতি আরো খারাপই হবে।

কিন্তু ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো এখন পর্যন্ত ক্ষমতা ছাড়ার কোনো লক্ষণ দেখাননি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য