দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে অবৈধভাবে কয়লা সংগ্রহের মাধ্যমে রাতারাতি কোটিপতি হওয়ার অভিযোগে ১টি পরিবারের ৪ সদস্যের নামে ক্রয়কৃত সম্পত্তির দলিল সংগ্রহের জন্য জেলা রেজিষ্ট্রারকে পত্র প্রেরণ করা হয়েছে।

দিনাজপুর জেলা রেজিষ্ট্রার মোঃ মোহছেন মিয়া জানান, দুর্নীতি দমন কমিশন সদর দপ্তর সহকারী পরিচালক মোঃ আহসানুল কবির পলাশ স্বাক্ষরিত এক পত্র তার দপ্তরে প্রেরণ করে জেলার পার্বতীপুর উপজেলার বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে অবৈধভাবে কয়লা সংগ্রহের মাধ্যমে রাতারাতি কোটিপতি হওয়ার অভিযোগ অনুসন্ধানে ১টি পরিবারের ৪ সদস্যের নামে ক্রয়কৃত দলিলের অনুলিপি সরবরাহের জন্য অনুরোধ করা হয়।

প্রেরিত পত্রে জানানো হয়, দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দর উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের একরামুল হকের পুত্র ইসতিয়াক আহমেদ, তার স্ত্রী শারমিন আক্তার, পুত্র ইশরাক আহমেদ ও ঈমান আহমেদের নামীয় রেজিষ্ট্রিকৃত দলিলের অনুলিপি সরবরাহের অনুরোধ জানানো হয়।

প্রাপ্ত দলিলগুলো আগামী ২৭ জানুয়ারীর মধ্যে দুদকের অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা সহকারী পরিচালক মোঃ আহসানুল কবির পলাশ বরাবর প্রেরণের জন্য বলা হয়। প্রাপ্তপত্রে নির্দেশ অনুযায়ী গত ১৫ জানুয়ারী থেকে অনুসন্ধান করে আজ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৫টি দলিল ওই ৪ সদস্যের নামে পাওয়া গেছে বলে সূত্রটি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে কয়লা ক্রয় করে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করেছেন। তার বিরুদ্ধে দুদকের অনুসন্ধানে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে এ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

দুদকের সহকারী পরিচালক জানান, এ পর্যন্ত ১৪ জন কয়লা ব্যবসায়ী ও তার পরিবার সদস্যদের বিরুদ্ধে ক্রয়কৃত দলিলের অনুসন্ধান সম্পন্ন করা হয়েছে। মামলার অনুুসন্ধান চলমান রয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য