নিউ ইয়র্কের মুসলিমদের বিরুদ্ধে হামলার ছক, গ্রেপ্তার ৪যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের এক মুসলিম কমিউনিটির বিরুদ্ধে বোমা হামলার পরিকল্পনা করার পর তিন ব্যক্তি ও এক কিশোরকে গ্রেপ্তার করেছে তদন্তকারীরা।

তাদের কাছ থেকে ঘরে তৈরি তিনটি বোমা ও প্রায় দুই ডজন বন্দুক উদ্ধার করা হয়েছে বলে মঙ্গলবার জানিয়েছে স্থানীয় গ্রিস শহর কর্তৃপক্ষ, খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

গ্রিসের পুলিশ প্রধান প্যাট্রিক ফিলান এক সংবাদ সম্মেলনে ঘটনার বিস্তারিত তুলে ধরেন।

তিনি জানান,শহরের ওডিসি একাডেমির এক ছাত্র সহপাঠীকে একটি ছবি দেখিয়ে বলে, “তাকে পরবর্তী স্কুল শ্যুটারের মতো লাগছে, তাই না?”

এই মন্তব্যের বিষয়ে স্কুলের নিরাপত্তা বিভাগকে জানানো হলে তারা স্থানীয় পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে ওই দুই ছাত্রকে ও তাদের ছবিতে থাকা ছাত্রকেও জিজ্ঞাসাবাদ করে।

এই তদন্ত শেষ পর্যন্ত পুলিশকে কয়েকটি তল্লাশি অভিযানের দিকে নিয়ে যায় এবং তারা চার জনকে গ্রেপ্তার করে; এদের মধ্যে যার ছবি নিয়ে দুই সহপাঠী আলোচনা করেছিল সেই ছাত্রটিও আছে।

এই দলটি ক্যাটস্কেল পর্বতমালায় অবস্থিত ছোট শহর ইসলামবার্গে হামলার পরিকল্পনা করেছিল। ওই শহরটি নিউ ইয়র্ক শহর থেকে ১৫০ মাইল উত্তরপশ্চিমে।

তিন দশকেরও বেশি আগে আফ্রিকান আমেরিকান মুসলিমদের একটি দল ইসলামবার্গ শহরটির স্থাপন করেছিল। এরা পাকিস্তানি সুফি সাধক মুবারিক আলী শাহ গিলানির অনুসারী ছিল।

এ ঘটনায় গ্রেপ্তার ব্রায়ান কোলনারি (২০) অ্যান্ড্রু ক্রিসেল (১৮) ও ভিনসেন্ট ভেটোরমাইল (১৯) অস্ত্র ও ষড়যন্ত্রের অভিযোগের মুখোমুখি হচ্ছে। পাশাপাশি গ্রেপ্তার ১৬ বছর বয়সী ওই ছাত্রের বিরুদ্ধেও একই অভিযোগ আনা হয়েছে, কিন্তু অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় তার পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।

ঘরে তৈরি বোমা তিনটি ওই কিশোরের বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তা ফিলান। অস্ত্রগুলোর সবই শটগান ও রাইফেল এবং সবগুলোই বৈধভাবে সংগ্রহ করা হয়েছে।

“তারা যদি এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতো তবে লোকজন মারা যেত। সব প্রস্তুতি এটাই বলছে যে তারা তা করতে যাচ্ছিল। আমি জানি না কতো লোক ও কারা মারা যেত, কিন্তু মানুষ মরতো,” সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন ফিলান।

গ্রেপ্তার চার জনের মধ্যে তিন জন একসঙ্গে বয় স্কাউটে ছিল বলে জানিয়েছেন তিনি।

এর আগেও ইসলামবার্গকে লক্ষ্যস্থল করা হয়েছিল। এই শহরটিতে হামলার ষড়যন্ত্র করায় দুই বছর আগে টেনেসির এক ব্যক্তির প্রায় ২০ বছরের কারাদণ্ড হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য