দিনাজপুরে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের সাথে সনাকে’র অধিপরামর্শ সভাদিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের সহযোগিতায়, সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) দিনাজপুরের আয়োজনে জেলার ১৩টি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে অধিপরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা বৃদ্ধি ও জনবান্ধব স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে করণীয় বিষয়ে আেলোচনা করা হয়।

সোমবার (২১ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতাল সভাকক্ষে সভায় সভাপতিত্ব করেন সনাক সভাপতি আব্দুল জলিল আহমেদ। সভায় জেলার সকল উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাদের স্বচ্ছ, জবাবদিহি ও জনবান্ধব স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর সিভিল সার্জন ডা. মো. আব্দুর কুদ্দস, বিশেষ অতিথি ছিলেন দিনাজপুর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা: মোঃ আহাদ আলী। সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন টিআইবি’র এরিয়া ম্যানেজার মো. আব্দুল হান্নান আজাদ।

বিশেষ অতিথি ডা. মো. আহাদ আলী বলেন, বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইসতেহার অনুযায়ী দুর্নীতি প্রতিরোধে সকল সরকারি কর্মকর্তাকে নিজেদের অবস্থান থেকে জাগ্রত হওয়া প্রয়োজন। শুধু টাকার মাধ্যমে দুর্নীতি হয় তা নয়, নিজেদের দায়িত্ব পুরোপুরি পালনে অবহেলা করাও দুর্নীতি। তাই সকলেই দুর্নীতিকে না বলবো তাহলে সুন্দর সোনার বাংলা গড়া সম্ভব। সনাক-টিআইবি সকলকে স্বরণ দেয়ায় টিআইবিকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

প্রধান অতিথি সিভিল সার্জন ডা. মো. আব্দুর কুদ্দস বলেন, চলামান সরকারের জাতীয় শুদ্ধাচার নীতি পুরোপুরি কার্যকরকরণে সকলের অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন এবং সততা ও স্বচ্ছতার সাথে কাজ করার আহবান জানান।

পাশাপাশি উপজেলা পর্যায়ে ভালোভাবে কাজ করার সময় কোন বাধা আসলে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগকে অবগত করার পরামর্শ দেন। সনাক-টিআইবি’র প্রত্যাশা অনুযায়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোত চিকিৎসকদের ওষুধের তালিকা ঝুলানোর ব্যবস্থা করা, তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তার নেমবার্ড লাগানো ও তথ্য প্রদানের রেজিষ্টার চালু করা, নারী-পুরুষ টিকেট ও ওষুধের কাউন্টার পৃথক করা, নারী সেবার পৃথকতালিকা দৃশ্যমান করা, অভিযোগ গ্রহণ ও নিস্পত্তির জন্য রেজিষ্টার চালু করাসহ যাবতীয় কার্যক্রমের তথ্য উন্মুক্ত করার বিষয়ে অনুরোধ জানান সিভিল সার্জন ডা. মো. আব্দুর কুদ্দস।

উন্মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেখন দিনাজপুর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মো. পারভেজ সোহেল রানা, চিরিরবন্দর ইউএইচএফপিও ডা. মো. আজমল হক ও নবাবগঞ্জের ইউএইচএফপিও ডা. মো. খায়রুল ইসলাম প্রমূখ। সভায় সনাক এবং ইউএইচএফপিওবৃন্দ যৌথভাবে একটি এডভোকেসী পরিকল্পনা তৈরি করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য