গাইড বইআরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধা জেলা শহরসহ বিভিন্ন উপজেলার বই বিতানগুলোতে চলছে গাইড বইয়ের রমরমা বাণিজ্য। শিক্ষার্থীরাও চড়া দামে এসব গাইড বই কিনছে। এতে বই ব্যবসায়ীদের পকেটে যাচ্ছে মোটা অঙ্কের টাকা।

অভিভাবকদের অভিযোগ, নজরদারি না থাকায় এমনটা ঘটছে। শিক্ষকরাই শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন বিষয়ের গাইড বই কিনতে উদ্বুদ্ধ করে থাকেন। গাইড বইয়ের অবাধ বেচাকেনা শিক্ষার্থীদের সৃজনশীলতা ধ্বংস করছে। সরকারের বিনামূল্যে বই বিতরণের মূল লক্ষ্য ব্যাহত হচ্ছে।

জেলা শহরের নিউ মার্কেটের বই বিতানগুলোতে দেখা মেলে বিভিন প্রকাশনীর গাইড বই। এসব বিক্রিও হচ্ছে চড়া দামে।

দ্বিতীয় শ্রেণির অনুপম, লেকচার, পপি গাইড বিক্রি হচ্ছে ১৫০-১৬০ টাকা, ৩য় শ্রেণির অনুপম, লেকচার ৩০০-৩৬০ টাকা, চতুর্থ শ্রেণির অনুপম, পাঞ্জেরি ৩২০-৩৫০ টাকা, পঞ্চম শ্রেণির লেকচার, অনুপম, পাঞ্জেরি ৪৮০-৫৫০ টাকা, ষষ্ঠ শ্রেণির অনুপম, লেকচার, পপি, পাঞ্জেরি, অ্যাডভান্স, অক্ষরপত্র ৫৮০-৬২০ টাকা, সপ্তম, অষ্টম শ্রেণির অ্যাডভান্স, লেকচার, অনুপম, পাঞ্জেরি, পপি, অক্ষরপত্র বিক্রি হচ্ছে ৭৫০-৮৫০ টাকায়।

গাইবান্ধা সদর উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির এক নেতা বলেন, রুট লেভেলে হস্তক্ষেপ করলে হবে না। গাইড বইয়ের ছাপাখানা বন্ধ করে দিতে হবে। গাইড বাণিজ্যের প্রসারে শিক্ষক সমিতির যোগসাজশ নেই।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য