অচলাবস্থা শেষ করতে ‘সমঝোতার’ প্রস্তাব ট্রাম্পেরচার সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে চলা যুক্তরাষ্ট্র সরকারের আংশিক অচলাবস্থা অবসানের চেষ্টায় নিজের মেক্সিকো দেয়াল প্রজেক্টের বিষয়ে নতুন পরিকল্পনা উত্থাপন করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

শনিবার হোয়াইট হাউস থেকে দেওয়া ভাষণে নিজের প্রস্তাবগুলোকে ‘সমঝোতা প্রস্তাব’ বলে উল্লেখ করেছেন তিনি।

তার প্রস্তাবিত ‘সমঝোতাগুলোর’ মধ্যে অল্প বয়সে যারা অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেছে সেই তথাকথিত ড্রিমারদের বিষয়টিও আছে; তবে দেয়াল নির্মাণের জন্য ৫৭০ কোটি ডলার তহবিলের বিষয়ে তিনি এখনও অটল আছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

ডেমোক্রেটরা এই তহবিল দিতে অস্বীকার করেছে এবং ট্রাম্পের ভাষণের আগেই প্রত্যাশিত ছাড়ের বিষয়টি প্রত্যাখ্যান করেছে।

যুক্তরাষ্ট্রে ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘমেয়াদি এবং এখনও চলমান অচলাবস্থার কারণে দেশটির আট লাখ ফেডারেল কর্মী বিপাকে পড়েছেন।

এই পর্যায়ে এসে ট্রাম্প বলেছেন, অভিবাসীদের স্বাগত জানানোর এক দীর্ঘ ইতিহাস যুক্তরাষ্ট্রের আছে কিন্তু এই ব্যবস্থাটি ‘অনেক দিন ধরে নাজুকভাবে ভেঙে পড়ছে’।

“এই লগজ্যাম ভাঙার জন্য ও কংগ্রেসকে সরকারের অচলাবস্থা শেষ করতে এগিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করতে” তিনি এই পরিকল্পনা নিয়ে হাজির হয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

তিনি আবারও দেয়াল নির্মাণের পক্ষে তার যুক্তিগুলো তুলে ধরেছেন এবং দেয়ালটি ধারাবাহিক না হয়ে বেশি স্পর্শকাতর স্থানগুলোতে শুধু একটি স্টিলের পথরোধক থাকবে বলে জানিয়েছেন; কিন্তু দেয়াল নির্মাণের জন্য ৫৭০ কোটি ডলারের দাবিতে অটল থেকেছেন।

এবারের বক্তব্যে ট্রাম্প যে দুই নতুন ‘সমঝোতার’ প্রস্তাব দিয়েছেন তা ড্রিমার ও টেম্পোরারি প্রটেকশন স্ট্যাটাস (টিপিএস) হোল্ডারদের নিয়ে।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় সাত লাখ ড্রিমার আছে; তাদের বাবা-মায়েরা যখন তাদের নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রবেশ করেছিলেন তখন তারা অল্প বয়সী ছিলেন।

কাজ করতে পারবে কিন্তু নাগরিকত্ব পাবে না, এমন একটি কর্মসূচীর আওতায় বর্তমানে ড্রিমাররা বিতাড়িত হওয়া থেকে সুরক্ষা পাচ্ছেন। এই কর্মসূচীটি বাতিল করার চেষ্টায় আছেন ট্রাম্প।

কিন্তু ভাষণে তিনি বলেছেন, ওয়ার্ক পারমিট পাওয়ার অনুমোদনসহ এই ড্রিমারদের সুরক্ষা আরও তিন বছর পর্যন্ত সম্প্রসারণ করবেন তিনি। পাশাপাশি টিপিএস ধারীদের ভিসাও আর তিন বছর পর্যন্ত বাড়াবেন।

যুদ্ধ ও দুর্যোগ কবলিত দেশগুলোর তিন লাখেরও বেশি লোক টিপিএস সুবিধায় যুক্তরাষ্ট্রে আছে; এই কর্মসূচীওর বিরোধিতা করছেন ট্রাম্প।

এর পাশাপাশি অন্যান্য কয়েকটি প্রস্তাবও দিয়েছেন ট্রাম্প। এরমধ্যে জরুরি মানবিক ত্রাণ সহায়তায় হিসেবে ৮০ কোটি ডলার বরাদ্দ, আরও দুই হাজার ৭৫০ সীমান্ত রক্ষী ও নিরাপত্তা কর্মকর্তা এবং ৭৫ জন নতুন অভিবাসন বিচারকের টিম নিয়োগ দেওয়া।

শেষের এই প্রস্তাবগুলো ডেমোক্রেটদের পরামর্শেই নেওয়া হয়েছে বলে গণমাধ্যমের খবর।

তার প্রস্তাবগুলো ‘অনেক সমঝোতাসহ যৌক্তিক’ এবং এগুলো ‘বিশ্বাস ও মঙ্গলকামনা’ তৈরি করবে বলে জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

কিন্তু ডেমোক্রেটরা তার নতুন প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় যুক্তরাষ্ট্র সরকারের অচলাবস্থার সহসাই ইতি ঘটছে না বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য