বিরলে সোশ্যাল মিডিয়া ভিত্তিক সংগঠনের স্কুল ব্যাগ বিতরণদিনাজপুর সংবাদাতাঃ “ওদের একার স্বপ্ন, আমাদের সবার প্রচেষ্টা” স্লোগানে একটি অলাভজনক সমাজ সেবামূলক প্রতিষ্ঠান স্বপ্ন-নাফিউ ফাউন্ডেশন এর ফেসবুক গ্রুপ এর উদ্যোগে স্কুল সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। নভেম্বর ও ডিসেম্বর টানা ২ মাস ফেসবুক ও সম্মুখ সাক্ষাতে আগ্রহীদের মাঝে টাকা সংগ্রহের কাজ চলে, এই সময়ে প্রায় ৩০ এর অধিক শিক্ষার্থীরা নিজের ব্যাক্তিগত খরচের টাকা থেকে টাকা দিয়ে স্কুল সামগ্রী বিতরণের কাজে এগিয়ে আসে।

অনুষ্ঠানের বিএসসি শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক এর সভাপতিত্বে আল হাসানা ইসলামিক স্কুলের পরিচালক ইত্তেশামুল হক প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন। ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি বদিউজ্জামান, সাবেক ইমাম ইয়াহিয়া ও আরো অনেক অতিথিবৃন্দ।

স্বপ্ন-নাফিউ ফাউন্ডেশনের সভাপতি এর ভাষ্যমতে “প্রতিটি শিক্ষার্থীর নতুন বছরে একটাই স্বপ্ন থাকে নতুন শুরু বছরটা শুরু হবে নতুন ব্যাগ, নতুন বই খাতা দিয়ে, সরকার নতুন বই তুলে দিতে পারলেও অনেক শিক্ষার্থীরা নতুন ব্যাগ নিয়ে স্বপ্নের নতুন বছরটা শুরু করতে পারে না আর সেই চিন্তা থেকেই থেকেই আমাদের এই উদ্যোগ।

স্কুল সামগ্রী বিতরণের অনুষ্ঠানে প্রতি শিক্ষার্থীকে স্কুল ব্যাগসহ সারা বছরে জন্য কলম- খাতা ও ড্রয়িং বক্স দেওয়া হয়েছে। সাধারণত কোন কিছু বিতরণ প্রচার করে দেওয়া হয় কিন্তু এক্ষেত্রে প্রচার নয় নির্বাচন করে বিতরণ করা হয়ে হয়েছে।

আদিল হোসেন বলেন “আমরা সাধারণত দেখি যে ঘোষণা দিয়ে কোন কিছু বিতরণ করা হয় এতে যারা পাওয়ার যোগ্য না বা যাদের চাহিদা নেই তাদের কাছেও বিতরণ হয় আর এজন্যই আমরা বিতরণের আগে আমাদের পাশে পাশের ৫ গ্রামের প্রতিটি বাড়িতে গিয়েছি এবং ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে যারা যোগ্য তাদের বের করে নিয়ে এসেছি”।

সর্বমোট বিশ জন শিক্ষার্থীদের মাঝে স্কুল সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে এদের মধ্যে একই পরিবারের চার জন (সাঁওতাল) উপজাতী, আট জন এতিম ও বাকীরা সনাতন (হিন্দু) ও মুসলিম।

অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে বলা হয় মুলত ত্রিশের অধীক শিক্ষার্থীদের মাঝে স্কুল সামগ্রী বিতরণের ইচ্ছা ছিল কিন্তু শিক্ষার্থী ছাড়া অন্য কোন বিত্ত্ববান ও চাকুরীজীবিরা তাদের এই উদ্যোগে এগিয়ে না আশায় দিতে পারা সম্ভব হয় নি তবে আমাদের এই কার্যক্রম এ বছর শুরু হয়েছে ইনশাআল্লাহ প্রতি বছর অব্যাহত থাকবে এখন শুধু কিছু শিক্ষার্থী এগিয়ে এসেছে আগামী সমাজের সকল সামর্থবান লোকেরা এগিয়ে আসবে।

ব্যাগের ঠিক একটু নিচে ৩৬ হাজার ভাল কাজের ভিশন দেখে, কেন এই লিখা প্রশ্ন করা হলে আদিল হোসেন বলেন, আমরা যে ফেসবুক গ্রুপ ভিত্তিক এই প্রোগ্রামের আয়োজন করতেছি তার নাম হল “৩৬ হাজার ভাল কাজের ভিশন, ৩৬ হাজার নামটা দেওয়ার কারণ হল আমরা আগামী সমাজসেবা মূলক কাজ ছড়িয়ে দেওয়ার লক্ষে পাঁচ বছরে দেশের প্রতিটি গ্রাম ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একটি করে ৫/৭ সদস্য ভিত্তিক টিম গড়ে তোলা। এভাবে ১ হাজার ৫০০ টি টিম গড়ে তোলায়ে টিম গুলোর কাজ হবে প্রতি মাসে ২ টি করে ভাল কাজ করবে তাহলে এই ১৫০০ টিম থেকেই প্রতি বছর ৩৬ হাজার ভাল কাজ আসবে। আর এর ধারাবাহিকতাতেই আমাদের এই স্কুল সামগ্রী বিতরণের উদ্যোগ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য