ফেব্রুয়ারিতে ‘কিম-ট্রাম্প’ দ্বিতীয় বৈঠকমার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ নেতা কিম জং উনের মধ্যে বহুল আকাঙ্ক্ষিত দ্বিতীয় শীর্ষ বৈঠক ফেব্রুয়ারির শেষদিকে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে হোয়াইট হাউস।

গত বছরের জুনে সিঙ্গাপুরের সানতোসা দ্বীপে দুই নেতার মধ্যে হওয়া ঐতিহাসিক প্রথম বৈঠকে কোরীয় উপদ্বীপের পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণে প্রতিশ্রুতি এসেছিল।

ওই বৈঠকের অগ্রগতি নিয়ে দুই পক্ষের অসন্তুষ্টির মধ্যেই নতুন আরেকটি বৈঠক আয়োজনের চেষ্টা চলছিল।

তারই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট উত্তরের শীর্ষ নেতার ‘ডানহাত’ খ্যাত কিম ইয়ং চোলের সঙ্গে বৈঠক করেন। এর পরপরই হোয়াইট হাউস থেকে ট্রাম্প-কিম দ্বিতীয় বৈঠক নিয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসে।

বিবিসি বলছে, শুক্রবারের বৈঠকে চোল ট্রাম্পকে উত্তরের নেতা কিমের একটি চিঠি দিয়েছেন বলেও ধারণা করা হচ্ছে।

সুনির্দিষ্ট সময় ও স্থান জানা না গেলেও ট্রাম্প-কিমের নতুন এ বৈঠকটি ভিয়েতনামে হতে যাচ্ছে বলে গুঞ্জন রয়েছে।

হোয়াইট হাউসে চোলের সঙ্গে ট্রাম্পের বৈঠকের পর প্রেসিডেন্টের প্রেস সেক্রেটারি সারাহ স্যান্ডার্স বলেছেন, নিরস্ত্রীকরণ নিয়ে দুই পক্ষের আলোচনায় অগ্রহতি হলেও যুক্তরাষ্ট্র উত্তর কোরিয়ার ওপর চাপ ও নিষেধাজ্ঞা বহাল রাখবে।

সিঙ্গাপুরের বৈঠকে পিয়ংইয়ং ও ওয়াশিংটনের মধ্যে সমঝোতা হলেও নিরস্ত্রীকরণের উপায় ও সময়সীমা সুনির্দিষ্ট না হওয়ায় পশ্চিমা বিশ্লেষকদের অনেকেই বৈঠকটির সফলতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। কয়েক মাস ধরে দুই দেশের সম্পর্কে স্থবিরতা ও কোনো কোনো ক্ষেত্রে টানাপোড়েন পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের ভবিষ্যৎ নিয়েও সন্দেহ বাড়িয়ে দিয়েছিল।

ট্রাম্প অবশ্য অনেক দিন ধরেই আরেকটি বৈঠকের ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়ে আসছিলেন। অন্যদিকে একই সময়ে বিশ্ব পরিমণ্ডলে নিজের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল করেছেন কিম।

দক্ষিণের সঙ্গে কূটনৈতিক টানাপোড়েন নিরসনে নিয়েছেন বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ উদ্যোগ। এক বছরে চারবার চীন সফর করে বেইজিংয়ের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার বিষয়টিও প্রকাশ্যে এনেছেন।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধে নিহত মার্কিন সেনাদের দেহাবশেষ ফেরত পাঠানোর পাশাপাশি পিয়ংইয়ং একটি পারমাণবিক পরীক্ষা কেন্দ্র ও রকেট উৎক্ষেপণ কেন্দ্র ধ্বংস করেছে। তবে এরপরও ওয়াশিংটনের নিষেধাজ্ঞা থেকে ছাড় পায়নি তারা। এ নিয়ে অসন্তোষও দেখিয়েছে উত্তর কোরিয়া।

যে কারণে ফেব্রুয়ারির বৈঠকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার ও নিরস্ত্রীকরণের সুস্পষ্ট ঘোষণা নিয়েই কথা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য