ডোমারে মাটির ভিতর হতে পাওয়া গৌতম বুদ্ধ দেবের মুর্তিটি উদ্ধারনীলফামারীর ডোমার উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের চামুয়ার বিল খননে মাটির ভিতর হতে পাওয়া গৌতম বুদ্ধদেবের মুর্তিটি অবশেষে উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার গভির রাতে সোনারায় ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের বাড়ি হতে পুলিশ মুর্তিটি উদ্ধার করে।

গৌতম বুদ্ধদেবের মুকুটসহ মুখমন্ডল সাদৃশ্য উদ্ধার হওয়া পাথরের মুর্তিটি সাড়ে ছয় ইঞ্চি দৈঘ্য, প্রস্থ আড়াই ইঞ্চি ও ওজন সাড়ে সাত শত গ্রাম।

থানা সুত্র জানায়, জলাশয় সংস্কারের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্পের আওতায় ১১ জানুয়ারী উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের চামুয়ার বিলে খনন কাজ শুরু হয়। খননকালে শ্রমিকরা একটি পাথরের মুর্তি দেখতে পায়।

মুর্তিটি সংরক্ষনের কথা বলে ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের ছেলে ফরহাদ হোসেন নিজের কাছে রেখে দেয়। বিষয়টি জানাজানি হলে গত শনিবার গভির রাতে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জয়ব্রত পাল ও ডোমার থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো: মোকছেদ আলী চেয়ারম্যানের বাড়ি হতে মুর্তিটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

সোনারায় ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তার সেলফোন ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তার ছেলে ফরহাদ হোসেন জানান, চামুয়ার বিলে মাটি খননের সময় একটি পাথরের মুর্তি পাওয়া যায়। মুর্তিটি আমি সংরক্ষন করে আমার বাবার (চেয়ারম্যান) মাধ্যমে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করি।

ডোমার থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো: মোকছেদ আলী জানান, গৌতম বুদ্ধ দেবের মুকুটসহ মুখমন্ডল সাদৃশ্য একটি মুর্তি উদ্ধার করা হয়েছে। মুর্তিটি কষ্টি পাথরের কিনা তা যাচাই করা হচ্ছে। মুর্তিটি সংরক্ষনের জন্য রংপুর তাজহাট যাদু ঘরে দ্রুত পাঠানো হবে। তিনি আরো জানান, মুর্তিটি আত্মস্বাদের চেষ্টার অভিযোগ রয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা: উম্মে ফাতিমা জানান, মুর্তি উদ্ধারের পর হতে বিলটির খনন কাজ বন্ধ রাখা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, মাটি কাঁটা শ্রমিকরা বলছে, সিঁড়ি সাদৃশ্য কিছু তারা দেখতে পেয়েছে। প্রত্মতান্ত্রিক বিভাগের দক্ষ কর্মকর্তাদের পরিদর্শনের পর বিলটির খননের বিষয়ে সিন্তান্ত নেয়া হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য