গাইবান্ধা-৩ ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থী সাবেক মন্ত্রী ফজলে রাব্বি চৌধুরীর ইন্তেকালআরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্যাপুর-পলাশবাড়ি) আসনে জাতীয় পার্টি (জাফর) মনোনীত ২০ দলীয় ও ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থী সাবেক মন্ত্রী ড. টিআইএম ফজলে রাব্বি চৌধুরী (৮৪) গত বুধবার দিবাগত গভীর রাতে অসুস্থজনিত কারণে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহী——রাজেউন)।

তিনি দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুসে সংক্রমণ ও উচ্চ রক্তচাপসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৩ ছেলে ও ২ মেয়ে রেখে গেছেন। তিনি পলাশবাড়ী উপজেলার তালুকজামিরা গ্রামের মরহুম স্কুল শিক্ষক আহসান উদ্দিন চৌধুরীর ছেলে।

সাদুল্যাপুর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি শফিউল ইসলাম স্বপন জানান, ফজলে রাব্বী চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে হৃদরোগে ভুগছিলেন। শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকায় নির্বাচন প্রার্থী হয়েও তিনি ভোটের মাঠে আসতে পারছিলেন না। বৃহ¯পতিবার তার ভোটের মাঠে আসার কথা ছিলো। কিন্তু হঠাৎ করে ঢাকার বনানীর নিজ বাসায় বুধবার রাতে বুকে ব্যাথা অনুৃভব করেন তিনি। তাকে দ্রুত ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ২টা ৫১ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

উল্লেখ্য, ১৯৩৪ সালের ১ অক্টোবর পলাশবাড়ী উপজেলার তালুক জামিরা গ্রামে জন্ম হয় ফজলে রাব্বী চৌধুরীর। তিনি গাইবান্ধা-৩ আসনে জাতীয় পার্টির হয়ে ১৯৮৬ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত (১৯৯৬) বিতর্কিত নির্বাচন বাদে) ছয়বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ড. টিআইএম ফজলে রাব্বি জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) এর ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ছিলেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে ধানের শীষ প্রতীকে প্রার্থী হন তিনি।

১৯৮৪ সালে সাবেক রাষ্ট্রপাতি এইচ.এম এরশাদের জাতীয় পার্টিতে যোগদান করেন ফজলে রাব্বী চৌধুরী। সেসময় তিনি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের রাজনৈতিক উপদেষ্টা ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি ভূমি মন্ত্রী, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী ও সংস্থাপন মন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। এর আগে তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ময়মনসিংহে ভেটানারী বিভাগের প্রধান হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

ফজলে রাব্বি চৌধুরী তৎকালিন সরকারের চীপ হুইপ ছিলেন। এছাড়া তিনি কেমব্রীজ ইউনিভার্সিটিতে দীর্ঘদিন শিক্ষকতা করেছেন। সরকারের কৃষি কমিটির চেয়ারম্যান, হাউজ বিল্ডিং কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান, পিএসসির চেয়ারম্যান, জীবন বীমা কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান, চিনি ও খাদ্য শিল্প সংস্থারও চেয়ারম্যান ছিলেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য