জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা ॥ নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার বোতলাগাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের এক মেম্বারের বাড়ি থেকে ৩টি চোরাই গরু উদ্ধার করা হয়েছে।

২০ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে এলাকাবাসী চোরাই গরুগুলো আটক করার পর খবর পেয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আল-হেলাল চৌধুরী উপস্থিত হয়ে গরুগুলো উদ্ধার করে ইউপি চত্বরে নিয়ে আসেন।

জানা যায়, একই ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড শ্বাষকান্দর শাহপাড়ার মো: আতাউর রহমান শাহ এর বাড়ি থেকে ভোর রাত আনুমানিক ৪ টার দিকে ১টি গাভি, ২টি ষাড় ও ১টি বকনা বাছুর চুরি হয়।

সকালে চোরাই গরুর খোজে বিভিন্ন স্থানে খবর দেয়া হলে ৫নং ওয়ার্ডের মেম্বার শাহিদুল ইসলামের বাড়ি বোতলাগাড়ী জানের পাড়ের লোকজন আতাউরকে চুরি যাওয়া গরুর খোজ দেয়।

তখন তারা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মেম্বারের শ্বশুড় বাড়িতে ৩টি গরু দেখতে পান। এসময় মেম্বারসহ তার পরিবারের লোকজন পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে ইউপি চেযারম্যান গরুগুলো উদ্ধার করেন।

এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান হেলাল চৌধুরীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাংবাদিকরা কোন কিছু চুরি হলে খবর পায়না অথচ উদ্ধার হলে এসে ভীড় করে।

এ ব্যাপারে আপনাদের কোন তথ্য দিতে চাইনা। ১টি গাভি এখনও উদ্ধার হয়নি, সেটি উদ্ধার হলে বিষয়টি মিমাংসা করা হবে। তাই এ নিয়ে খবর করার প্রয়োজন নাই। এ কারণে তিনি উদ্ধারকৃত গরুগুলোর ছবি তুলতে দেননি।

উল্লেখ্য, মেম্বার শাহিদুল পেশায় একজন চোর ও মাদক ব্যবসায়ী। সে তার অপকর্ম ছেড়ে দিয়ে মানুষের সেবা করার ওয়াদা করায় এলাকাবাসী তাকে নির্বাচিত করে। কিন্তু সে তার অভ্যাস ত্যাগ করতে পারেনি।

এ কারণে তাকে নিয়ে প্রায়ই নানা অঘটন ঘটে চলেছে। বিগত ১ মাস পূর্বে তার ওয়ার্ডের ১০ জন হতদরিদ্রের নামে ১০ টাকা কেজি দরের চাল বিক্রির কার্ড করে নিজেই সে চাল আত্মসাৎ করার ঘটনা ফাস হয়ে পড়ে।

এর আগে গত রমজানের ঈদের সময় ভিজিএফ এর চাল দেয়ার জন্য ভূয়া কার্ড ধরা পড়ায় তাকে বরখাস্ত করা হয় ইউনিয়ন পরিষদ থেকে। এবার তার বাড়ি থেকে উদ্ধার হলো চোরাই গরু। ফলে ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপকভাবে চাউর হয়ে পড়েছে। এনিয়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য