নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা সময় নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের নিন্দাদিনাজপুর সংবাদাতাঃ উচ্চ আদালত হতে জামিনপ্রাপ্ত হওয়ার পরও বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নাশকতা, হত্যা, ইয়াবা সংক্রান্ত মিথ্যা মামলায় পুনঃগ্রেফতার, নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা তথা পোষ্টার, লিফলেট বিতরণের সময় নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের নিন্দা জানিয়েছে বিএনপি। পাশাপাশি মিথ্যা মামলাসহ অযথা হয়রানী বন্ধ ও অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবী জানানো হয়েছে সংবাদ সম্মেলনে।

শনিবার (১৫ ডিসেম্বর) বেলা ১২টায় জেল রোডস্থ দিনাজপুর জেলা বিএনপির কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবী জানান দিনাজপুর জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক ও দিনাজপুর-৩ (সদর) আসনের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক আলহাজ্ব মো. লুৎফর রহমান মিন্টু।

লিখিত বক্তব্যে লুৎফর রহমান মিন্টু বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথে প্রধানমন্ত্রীর বলেছিলেন, নির্বাচনের তাফসিল ঘোষণার পর বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে কোন মামলা দেওয়া হবে না এবং গ্রেফতার করা হবে না। বিনা পরোয়ানায় গ্রেফতারী বন্ধ বা অযথা হয়রানী বন্ধ করতে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা রয়েছে।

কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়, তফসিল ঘোষণার পরেও দিনাজপুর জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক মোকাররম হোসেন, বখতিয়ার আহম্মেদ কচি, জাহাঙ্গীর আলম, মোস্তফা কামাল মিলন, জেলা যুবদলের সভাপতি আব্দুল মোন্নাফ মুকুলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জেলা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শাহিন সুলতানা বিউটিসহ বিএনপির অন্যান্য নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নাশকতার মামলা দেওয়া হয়েছে। অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের মুক্তিসহ অযথা হয়রানী বন্ধের জন্য পুলিশ প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে অবাধ, সুষ্ঠু একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি, গনতন্ত্র পুনঃউদ্ধার করে ভোটের অধিকার নিশ্চিতের দাবীতে দীর্ঘদিন যাবৎ আন্দোলন করে আসছে বিএনপিসহ বিশ দলীয় জোট তথা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। আন্দোলনের অংশ হিসেবে শত প্রতিকূলতার মধ্যেও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দিনাজপুর-৩ (সদর) আসনে ধানের শীষ প্রতিকে সংসদ সদস্য প্রার্থী সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন।

তিনি বলেন, দিনাজপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও কোতয়ালী ওসি সরকারী দলের প্রার্থীর পক্ষে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে নির্বাচনী কার্যে অংশগ্রহণ করছেন এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট কর্তৃক মনোনিত প্রার্থীর পক্ষের কর্মীদের অযথা হয়রানী করছেন। সংবাদ সম্মেলনে অবিলম্বে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও কোতয়ালী ওসির প্রত্যাহার দাবী করেন।

সংবাদ সম্মেলনে দিনাজপুর-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য প্রার্থী ও দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহ্ঙ্গাীর আলম, দিনাজপুর-২ (বিরল-বোচাগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য প্রার্থী মো. সাদিক রিয়াজ চৌধুরী পিনাক, দিনাজপুর-৪ (চিরিরবন্দর-খানসামা) আসনের সংসদ সদস্য প্রার্থী মো. আখতারুজ্জামান মিয়া, জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক ও সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এ্যাড. মো. মোফাজ্জল হোসেন দুলাল বক্তব্য রাখেন।

এ সময় তারা বলেন, আমরা ঠিকমতো প্রচার কার্য চালাতে পারছি না। সরকারী দলের নেতাকর্মীরা বিএনপির নেতাকর্মী বাধা দিচ্ছেন। মোবাইলসহ নানাভাবে হুমকি দিচ্ছেন। গায়ে পড়ে আমাদের সাথে ঝগড়া করতে চাচ্ছেন। সুষ্ঠু নির্বাচনের সাথে স্বার্থে অবিলম্বে এসব কর্মকান্ড বন্ধের দাবী জানান তারা।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপি, পৌর বিএনপি, কোতয়ালী বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, ছাত্রদল, শ্রমিক, মহিলাদলসহ অন্যান্য অঙ্গ-সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য