অ্যান্টার্কটিকায় মার্কিন গবেষণা স্টেশনে ২ কর্মীর মৃত্যুঅ্যান্টার্কটিকায় যুক্তরাষ্ট্রের গবেষণা স্টেশনে রক্ষণাবেক্ষণের কাজ করাকালে দুই কারিগরের মৃত্যু হয়েছে।

নিকটবর্তী একটি রেডিও ট্রান্সমিটারের জন্য ব্যবহৃত জেনারেটর রাখার ভবনে বুধবার তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল সায়েন্স ফাউন্ডেশন (এনএসএফ), খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

এই দুজন এনএসএফ পরিচালিত অ্যান্টার্কটিকার ম্যাকমুর্দো স্টেশনে সাবকন্ট্রাক্টর হিসেবে নিযুক্ত হয়েছিলেন। তাদের ওই ভবনের মেঝেতে অজ্ঞান অবস্থায় পাওয়া যায়।

ওই এলাকার ওপর দিয়ে উড়ে যাওয়ার সময় এক হেলিকপ্টার পাইলটের মনে হয় ওই ভবনটি থেকে ধোঁয়া বের হচ্ছে, কী ঘটেছে তা দেখতে গিয়ে তাদের ওই অবস্থায় দেখতে পান তিনি।

ঘটনাস্থলে চিকিৎসকদের ডাকা হলে তারা একজনকে মৃত ঘোষণা করেন। অপরজনকে হেলিকপ্টারে করে ম্যাকমুর্দো মেডিকেল ক্লিনিকে নিয়ে যাওয়ার কিছুক্ষণ পর মৃত ঘোষণা করা হয়, এক বিবৃতিতে জানিয়েছে এনএসএফ।

ওই দুই কর্মী ফায়ার টেকনিশিয়ান ছিলেন বলে জানানো হয়েছে। অজ্ঞান হওয়ার আগে তারা ওই ভবনটির অগ্নিনিরোধক পদ্ধতি রক্ষণাবেক্ষণের কাজ করছিলেন বলে সংস্থাটি জানিয়েছে।

তাৎক্ষণিকভাবে বিস্তারিক আর কোনো কিছু জানানো হয়নি। ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে সায়েন্স ফাউন্ডেশন।

অ্যান্টার্কটিকার ম্যাকমুর্দো সাউন্ড এলাকায় ১৯৫৫ সালে গবেষণা স্টেশনটি স্থাপন করে যুক্তরাষ্ট্র। ম্যাকমুর্দো নামটি ব্রিটিশ নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তারা নাম। ১৮৪১ সালে ওই এলাকার মানচিত্র প্রণয়ণ করা এক অভিযাত্রী দলের অংশ ছিলেন তিনি।

অ্যান্টার্কটিকার রস দ্বীপের নিউ জিল্যান্ডের দাবিকৃত এলাকা রস ডিপেনডেন্সিতে অ্যান্টার্কটিকার সবচেয়ে বড় এই ঘাঁটিটির অবস্থান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য