12 12 18

বুধবার, ১২ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ৪ঠা রবিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী

Home - জেনে রাখুন - হৃদয়ের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে মেনে চলুন সহজ নিয়ম

হৃদয়ের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে মেনে চলুন সহজ নিয়ম

হৃদয়ের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে মেনে চলুন সহজ নিয়মমেয়েদের মধ্যেও আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে হৃদরোগের আশঙ্কা, বয়সটাও আর খুব একটা বড়ো ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়াচ্ছে না৷ তাই হৃদয়কে সুস্থ রাখতে চাইলে আজই সচেতন হয়ে উঠুন৷ মেনে চলুন কয়েকটি সাধারণ নিয়ম, হিসেব করে খাওয়াদাওয়া করুন৷ তা হলেই সুস্থ থাকবে আপনার হৃদয়৷

App DinajpurNews Gif

অন্তত ছয় ঘণ্টা বরাদ্দ রাখুন ঘুমের জন্য:
ঘুমে যেন কোনও ব্যাঘাত না ঘটে, সেটাও গুরুত্বপূর্ণ৷ ঘুমের মধ্যে যদি মনে হয় আচমকা দম বন্ধ হয়ে আসছে এবং তার ফলে ঘুম ভেঙে যাচ্ছে, তা হলে সচেতন হতে হবে৷ সম্ভবত আপনি স্লিপ অ্যাপনিয়ায় আক্রান্ত৷ নাক ডাকাও হার্টের পক্ষে খুব একটা ভালো নয়৷ সেক্ষেত্রেও ডাক্তার দেখিয়ে নিরাময়ের ব্যবস্থা করতে হবে৷

ঘণ্টার পর ঘণ্টা কমপিউটার, টিভি বা ভিডিয়ো গেম নিয়ে বসে থাকবেন না:
ধূমপানে শরীরের যা ক্ষতি হয়, তার চেয়ে বেশি ক্ষতি হয় টানা বসে ভিডিয়ো গেম খেললে, টিভি বা মোবাইলে বুঁদ হয়ে থাকলে৷ যাঁরা নিয়মিত ব্যায়াম করেন, তাঁরাও যদি লম্বা সময় ধরে এক জায়গায় বসে থাকেন, তা হলে হার্ট অ্যাটাক হওয়ার আশঙ্কা বাড়ে৷ সম্ভব হলে প্রতি আধ ঘণ্টা অন্তর সিট থেকে উঠে একটু হেঁটে চলে বেড়ান৷

স্ট্রেস থেকে মুক্তির উপায় খুঁজুন:
কাজের চাপ রাতারাতি কমানো সম্ভব নয়, যেটা করতে পারেন সেটা হচ্ছে স্ট্রেস থেকে মুক্তির উপায় খোঁজা৷ এমন কিছুর সঙ্গে নিজেকে যুক্ত করুন যা মন ফুরফুরে রাখতে সাহায্য করে৷ গান শুনুন, বেড়াতে যান৷ মাঝে-মধ্যে ব্রেক নিন৷ স্ট্রেস বাড়লেই বাড়বে হার্ট রেট আর রক্তচাপ, তাতে ক্ষতিগ্রস্ত হবে আর্টারির দেওয়াল৷ যোগাভ্যাস স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করতে পারে৷

বেশি নুন খাবেন না:
সোডিয়াম জল ধরে রাখে, তার ফলে বাড়ে রক্তের ভলিউম৷ বাড়তি চাপ পড়ে হার্টের উপর৷ তাই নুন খাওয়ার পরিমাণ কমান৷ রান্নায় নুন চলবে, বাদ দিন প্যাকেটজাত খাবার, প্রসেসড ফুড আর কাঁচা নুন খাওয়া৷

মুখগহ্বরের স্বাস্থ্য ভালো রাখুন:
মুখগহ্বর থেকেই অনেক অসুখের সূত্রপাত হয়৷ তাই দাঁত ও মাড়ির স্বাস্থ্য ভালো রাখাটা একান্ত গুরুত্বপূর্ণ৷ সেই সঙ্গে খাবার খাওয়ার আগে অবশ্যই ভালো করে হাত ধুয়ে নিতে হবে৷ তাতে ঠেকানো যাবে ব্যাকটেরিয়ায় শরীরে প্রবেশের আশঙ্কা৷

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য