দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার গ্রামে-গঞ্জের ঘরে ঘরে চলছে নবান্নের আমেজ। জমিতে লাগানো আগাম জাতের আমন ধান কেটে ঘরে তোলা শুরু করেছে কাহারোল উপজেলার কৃষকেরা।

উপজেলার ঈশানপুর গ্রামের কৃষক পাথারু চন্দ্র রায় বলেন, গ্রাম্য বধুরা জামাই কে সাথে নিয়ে বাপের বাড়িতে নবান্ন উৎসব করার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে।

নবান্ন উৎসবে গ্রামের কৃষকেরা মিলে-মিশে গরু-মহিষ ও খাসি জবাই করে। হাট-বাজারের বড় বড় মাছ কিনে আনে। এই নিয়মের ধারাবাহিকতায় কৃষকদের ঘরে ঘরে চলছে এখন ঐতিহ্যবাহী নবান্ন আমেজ। এবার হেমন্তের শুরুতেই ঘরে উঠেছে আগাম জাতের ধান।

নির্ধারিত সময়ের আগেই পাকা ধান যেমন ধরে উঠেছে, তেমনি সেই ধানের ফলনও তুলনা মুলক ভাল। এছাড়াও নতুন ধানের বাজার ভাল দাম পেয়েও খুশি কৃষকেরা। কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, ১ সপ্তাহের মধ্যে উপজেলায় পুরা দমে আমন ধান কাঁটা মাড়াই শুরু হবে। একাধিক কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মৌসুম শুরুর আগেই ধান কাঁটা হলে সেই জমিতে রবি শষ্য বিশেষ করে আলু ও সরিষা চাষ করা যাবে।

এই কারনেই উপজেলায় কৃষকেরা এবার বিনা-৭, বিনা-৪৯, বিনা-৬৬ ও আগাম জাতের ধান লাগিয়েছিল। প্রতি বিঘা জমিতে এবার আগাম জাতের আমন ধান ১৮ হতে ২০ মন করে পাওয়া যাচ্ছে। জমি থেকে ধান কাটার পর মাড়াই করেই বাজারে তুলে ধানের দাম পাওয়া যাচ্ছে ৬৫০ টাকা থেকে ৭০০ টাকায়।

কাহারোল উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানাগেছে, কাহারোল উপজেলায় এবার চলতি মৌসুমে ১৩ হাজার ৭৯০ হেক্টর জমিতে লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। কৃষকেরা ধানের দাম ভাল পেয়ে বেশ খুশি। কাহারোল উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ আবু জাফর মোঃ সাদেক জানান, আগামি ১ সপ্তাহের মধ্যে আমন ধান কাটা-মাড়াই শুরু হবে পুরা দমে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য