কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই বিদ্যালয়ের গাছ কর্তনমাসুদ রানা পলক, ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার মধুরাপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হক ও সভাপতি সিরাজুল ইসলাম ক্ষমতার দাপটে কর্তপক্ষের অনুমতি না নিয়ে নিজেরা বিদ্যালয়ের প্রায় ১ লক্ষ টাকা মূল্য‌ের ২৪ টি কাঠাল গাছ বিক্রয় করেছেন।

প্রধান শিক্ষক আব্দুল হক বাংলাদেশ শিক্ষক (মাধ্যমিক) সমিতির ঠাকুরগাঁও জেলা শাখার সভাপতি।এলাকাবাসীরা জানায়, মধুরাপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হক ও সভাপতি সিরাজুল কিছুদিন আগেও বিদ্যালয়ের ৮ টি গাছ গোপন বিক্রয় করেছেন।

এবার তারা ২৪ টি গাছ গোপনে বিক্রয় করেছেন। এ গাছ গুলা বিদ্যালয়ের চার পাশে ছায়া হয়ে ছিল শিক্ষার্থীরা ছায়ার মধ্য‌ে খেলাধুলা করতো। বিদ্যালয়ের পরিবেশ খুব ভাল ছিল। এক সময় গাছ গুলা ভাল দাম পেতো বিদ্যালয়টি। কি যারা গাছ গুলা বিক্রয় করছেন তারা নিজে লাভবান হওয়ার জন্যই গাছ বিক্রয় করেছেন।

এলাকাবাসীরা আরো জানায়, বর্তমানে বিদ্যালয়টির পরিচালনা কমিটির মানষিকতা এতো খারাপ যে তিনারা সরকারি সোলারের দামী আসল তার বিক্রয় করে কম দামী তার ব্যবহার করেছেন।

মধুরাপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সদ্য বিক্রিত ২৪ টি গাছ ক্রয় করেছেন স্থানীয় গাছ ব্যবসায়ি। তিনি অর্ধেক গাছ কর্তন করেছেন বাকি অর্ধেক আজ কালের মধ্য‌ে কাটা শেষ করবেন।

প্রশাসনিক সুত্র‌ে জানা য়ায়, কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গাছ বিক্রয় করতে হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও বন বিভাগে আবেদন করতে হয় । বন বিভাগ গাছ দেখে মুল্য নির্ধারণ করেন।

পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গাছ বিক্রয়ের অনুমোদন দিলে ওপেন ডাকের মাধ্যমে গাছ বিক্রয় করতে হয়। শুধু মাত্র বিদ্যালয়ের নিজস্ব ব্যবহারের প্রয়োজনে গাছ কাটতে পারেন তাও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানাতে হবে।

প্রধান শিক্ষক আব্দুল হক বলেন, ২৪ টি গাছ ৪৯ হাজার টাকা বিক্রয় করেছি। আগে কমিটির সবার সাথে গাছ বিক্রয়ের বিষয়ে মিটিং হয়েছে। তাছাড়া বিদ্যালয়ের গাছ কাটায় কারো অনুমতি নিতে হবে আমার জানা নাই। অনুমতি লাগলে পরে নিবো। আর সোলারর তার বাহিরে বিক্রয় করিনি চুরি হওয়ায় অন্য তার কিনে লাগানো হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও বন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা‌ে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, মধুরাপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ২৪ টি কাঠাল গাছ বিক্রয়ের জন্য কোন আবেদন পায়নি। তাই বন বিভাগ কোন মুল্য নির্ধারণ বা অনুমতি দেয়নি।

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম বলেন, শুনেছি অনুমোদন ছাড়া মধুরাপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের গাছ কাটা হচ্ছে এমন খবর নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুনকে দায়ীত্ব দেওয়া হয়েছে। দ্রুত প্রয়াজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য