ফ্রান্স আমেরিকার ক্রীড়নক নয়ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ বলেছেন, ইতিহাসের প্রতিটি মুহূর্তে ফ্রান্স ও যুক্তরাষ্ট্র পরস্পরের মিত্র। মিত্র হিসেবে আমাদের পরস্পরের প্রতি সম্মান রয়েছে। তবে আমেরিকার সঙ্গে বন্ধুত্বের অর্থ এই নয় যে, প্যারিস ওয়াশিংটনের ক্রীড়নকে বা আজ্ঞাবহ রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। বুধবার টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন।

এর আগে ম্যাক্রোঁ ইউরোপের জন্য আলাদা সেনাবাহিনী গঠনের প্রস্তাব করেন। তার ওই প্রস্তাবের তীব্র সমালোচনা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ নিয়ে দুই নেতার মধ্যে বাদানুবাদ তৈরি হয়।

৪০ বছরের ফরাসি প্রেসিডেন্ট বলেন, ইউরোপের কোনও অবস্থাতেই আমেরিকার ওপর নির্ভরশীল হওয়া উচিত হবে না।

এদিকে ফ্রান্স সরকারের মুখপাত্র বেনিয়ামিন গ্রিভক্স তার দেশের প্রেসিডেন্টকে আক্রমণ করে ট্রাম্পের দেওয়া বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন। তিনি বলেন, ফরাসি প্রেসিডেন্টের সমালোচনা না করে প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলার বার্ষিকীকে ট্রাম্পের উচিত ছিল কিছুটা হলেও ভদ্রতা বজায় রাখা।

ট্রাম্প মঙ্গলবার প্যারিসে উগ্র জঙ্গি গোষ্ঠী আইএসের বড় ধরনের হামলার তৃতীয় বার্ষিকীতে ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ’র সমালোচনা করে বলেন, নিজ দেশে ফরাসি প্রেসিডেন্টের জনপ্রিয়তা কমে যাওয়ায় তিনি ইউরোপের জন্য সেনাবাহিনী গঠনের প্রস্তাব দিয়েছেন।

প্রথম ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে মার্কিন বাহিনীর কথিত অবদানের কথা স্মরণ করে ট্রাম্প বলেন, সে সময় মার্কিন বাহিনী এগিয়ে না এলে আপনাদের আজ প্যারিসে বসে জার্মান ভাষা শিখতে হতো।

উল্লেখ্য, গত ৬ নভেম্বর এক সাক্ষাৎকারে ‘ইউরোপীয় সেনাবাহিনী’ গঠনের আহ্বান জানিয়ে ম্যাক্রোঁ বলেছিলেন, ওয়াশিংটনের ওপর নির্ভরশীলতা বাদ দিয়ে ইউরোপের উচিত আত্মরক্ষার নিয়ন্ত্রণ নিজের হাতে গ্রহণ করা। সূত্র: টেলিগ্রাফ, পার্স টুডে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য