নবাবগঞ্জে চার দিন পর উদ্ধারকৃত লাশের মাথা উদ্ধারদিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ থানা পুলিশের উদ্ধারকৃত নুরুজ্জামান সরকারের (পুষি) মস্তক বিহীন লাশের মাথা ৪ দিন পর উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রবিবার দুপুরে উপজেলার শালখুরিয়া ইউনিয়নের মাগুরা গ্রামের উত্তর পশ্চিমে মাঠে ধান ক্ষেতের ভিতর থেকে ক্ষত-বিক্ষত অবস্থায় মাথাটি উদ্ধার করা হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে যেখান থেকে তার লাশটি উদ্ধার করা হয়েছিল সেখান থেকে দক্ষিন দিকে কয়েক বিঘা জমির দুরত্বে ধান ক্ষেতের ভিতরে মাথাটি ছিল। উদ্ধারকৃত মাথাটি দেখার জন্য সেখানে উৎসুক জনতার ভিড় জমে যায়।

এর আগে গত শুক্রবার লাশের অবস্থান থেকে উত্তর দিকে কয়েক বিঘা জমির দুরত্বে তার পরনের সার্ট, প্যান্ট, জাঙ্গিয়া ও জ্যাকেট উদ্ধার করা হয়েছিল।

উল্লেখ্য, ৮ নভেম্বর বৃহস্পতিবার নবাবগঞ্জ থানা পুলিশ উপজেলার শালখুরিয়া ইউনিয়নের মাগুরা গ্রামের মাঠের ধান ক্ষেত থেকে বিরামপুর উপজেলার চাঁদপুর মাহালি পাড়া এলাকার নঈমুদ্দিন মাস্টারের ছেলে কাঠ ব্যবসায়ী নুরুজ্জামান সরকারের (পুষি) মস্তক বিহীন বিবস্ত্র লাশ উদ্ধার করেছিল।

ঐ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে মাগুরা গ্রামের আফজাল হোসেনের ছেলে রফিকুল ইসলামকে আটক করা হয়েছিল। এ ব্যাপারে ওই দিনই পুষির বড় ভাই মনিরুজ্জামান সরকার বাদী হয়ে নবাবগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পুষির পরিবার জানান, গত বুধবার বিকালে মাগুরা গ্রামের রফিকুল ইসলামের নিকট পাওনা টাকা নিতে গিয়ে পুষি আর বাড়ী ফিরে আসে নাই। পর দিন বৃহস্পতিবার রফিকুলের গ্রামের পার্শ্বে ধান ক্ষেত থেকে তার লাশ পাওয়া যায়। তার ব্যবহৃত মটর সাইকেলটি পাওয়া যায় রংপুরের মিঠাপুকুর এলাকায়।

তবে কি কারনে এমন চাঞ্চল্যকর হত্যাকান্ড সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি। এদিকে রবিবার সকাল ১১ টায় পুষির হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে বিরামপুর মহাসড়কের দুই পার্শ্বে দাড়িয়ে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য