দিনাজপুরে কমরেড আবদুস সাত্তার খাঁনের ২২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভাদিনাজপুর সংবাদাতাঃ মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক-বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও প্রখ্যাত কৃষক নেতা কমরেড আবদুস সাত্তার খাঁনের ২২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত।

দেশবরেন্য প্রখ্যাত কৃষক নেতা কমরেড আবদুস সাত্তার খাঁনের ২২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় দিনাজপুরের গোপালগঞ্জে বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশন,আদিবাসী সমিতি,কিষানী সভা ও ভুমিহীন সমিতি দিনাজপুরের আয়োজনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশন দিনাজপুর শাখার সভাপতি তারোক কবিরাজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন,বাংলাদেশ আদিবাসী সমিতি দিনাজপুরের সভাপতি স্বপন এক্কা,কিষানী সভার সভাপতি সাবিহা বেগম,ভুমিহীন সমিতির সভাপতি মো: রশিদুল ইসলাম জুয়েল,সাবিনা ইয়াসমিন,শ্রী অনিল চন্দ্র রায়,বাবুল মুন্সী প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন,এদেশের কৃষক ও সাধারন মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটাতে সারাজীবন বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামের মধ্যদিয়ে এক বণার্ঢ্য সংগ্রামী জীবন কাটিয়েছেন কমরেড আবদুস সাত্তার খাঁন। তারা আরো বলেন,সাম্্রাজ্যবাদী বেনিয়া শাসক গোষ্ঠির শোষন আর নির্যাতনের বিরুদ্ধে তিনি ছিলেন সব সময়ই সোচ্চার ও প্রতিবাদী।

আবদুস সাত্তার খাঁন তার বর্ণাঢ্য সংগ্রামী রাজনৈতিক জীবনে কৃষক-শ্রমিক মেহনতি মানুষকে উজ্জীবিত করতে নানামুখী উদ্দ্যোগ নিয়েছেন,তার প্রচেষ্টায় ৭টি গনসংগঠন একটি অভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে রাজনৈতিক জোট হিসেবে দেশে রাজনৈতিক কর্মকান্ডের অনুশীলন করে আসছে।

বক্তারা বলেন,রাজনৈতিক কর্মকান্ডের পাশাপাশি কমরেড আবদুস সাত্তার খাঁন নিজ অঞ্চলসহ দেশের বিভিন্নস্থানে সামাজিক কর্মকান্ডও চালিয়েছেন। আলোচনা সভায় তারা আশা করেন,আবদুস সাত্তার খাঁনের দীর্ঘ রাজনৈতিক,সামাজিক ও উন্নয়নমুখী কর্মকান্ডের সুফল আগামী প্রজন্মের নিকট অনুকরনীয় দৃষ্টান্ত হিসেবে স্থান পাবে।

উল্লেখ্য,বাংলাদেশের কৃষক আন্দোলনের প্রান পুরুষ কমরেড আবদুস সাত্তার খাঁন ১৯২৫ সালে দক্ষিন বাংলার উপকুলীয় জেলা পটুয়াখালীর দশমিনা থানার দশমিনা নামক গ্রামে সম্ভ্রান্ত জোতদার পরিবারে জন্মগ্রহন করেছিলেন এবং ১৯৯৬ সালের ৭ নভেম্বর সকাল সোয়া ৮টায় রাজধানী ঢাকার একটি ক্লিনিকে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য