ঠাকুরগাওয়ে জমিজমার জেরে প্রাণ গেল গৃহবধুরমাসুদ রানা পলক, ঠাকুরগাও : মাত্র ৪ শতক জমির মালিকানা নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের লাঠির আঘাতে অনিতা রানী ঘোষ( ৩৫) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার সকাল পৌনে ৬ টায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিতসাধীন অবস্থায় মারা যায় অনিতা রানী।নিহত অনিতা রানী ঘোষ ঠাকুরগাও সদর উপজেলার ঘনিমহেশপুর গ্রামের বাসিন্দা।

এলাকাবাসী সৃত্রে জানা যায়, ঘনিমহেশপুর মিশনপাড়া গ্রামের বাবলু ঘোষ ও দিনু ঘোষ তার প্রয়াত নানা মহেন্দ্র নাথের ত্যক্ত জমির ওয়ারিশ হিসেবে বসবাস করে আসছিল।

মহেন্দ্রনাথের মৃত্যুর পর তার স্ত্রী সন্ধা রানী ওই জমি চুনিলাল সরকারের নিকট বিক্রি করেন।পরে চুনিলালের কাছে জমি কিনে নিয়ে দখলের চেষ্টা চালায় সেলিম উদ্দীন।

এ নিয়ে একাধিকবার বিচার শালিসও হয়।ওই সময় জাহাঙ্গীর আলম ইউপি সদস্য থাকায় তিনি বাবলু ঘোষদের উদ্ধারের জন্য তাদের ৬ শতক জমি মেম্বারের নামে এবং মেম্বারের উত্তরা একাকার ৪ শতক জমি বাবলুর ভাইদের নামে ২০১২ সালে বিনিময় দলিল হয়।কিন্তু জাহাঙ্গীর মেম্বারের জমির দখল নিয়ে গন্ডগোল দেখা দেওয়ায় বাবলু ঘোষ গং তাদের নিজের বসতবাড়ি বসবাস অব্যাহত রাখে।ওদিকে জাহাঙ্গীর মেম্বারও দলিলের জমির দখল নিতে রাস্তা সংলগ্ন ২ শতক জমি দখল করে তার প্রথম স্ত্রী নিলুফা বেগমকে একটি ঘরে তোলে।

গত সোমবার সকালে জাহাঙ্গীর মেম্বারের প্রথম স্ত্রী প্রসাব করতে মিশনের প্রাচীরের কাছে যায়।ওইসময় বাবলু ঘোষের ছেলে অণ্তর ঘোষ ঘুম থেকে উঠে পড়তে বসার জন্য মুখ ধুতে যায়।ও ইসময় ওই মহিলার সঙ্গে তার চোখাচোখি হয়।
এ নিয়ে ঝগড়ার সূত্রপাত হয়।

সকাল অনুমান ১০ টার দিকে জাহাঙ্গীর মেম্বার এলে ঝগড়ার গতি বেড়ে যায় এবং উভয়পক্ষ লাঠি নিয়ে প্রতিপক্ষকে মোকাবেলা করার প্রস্তুতি নেয়।এক পর্যায়ে জাহাঙ্গীর মেম্বার লাঠি দিয়ে অনিতার মাথায় আঘাত করলে সে মাটিতে পড়ে গিয়ে অজ্ঞান হয়।

প্রতিবেশি আব্দুল আজিজ সহ অন্যরা তাকে ঠাকুরগাও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। রোগীর অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার ভোর পৌনে ৬ টায় অনিতা ঘোষ মারা যায়।

এ ঘটনায় হাসপাতালের পক্ষ থেকে রংপুর কতোয়ালী থানায় মৃত্যুর সংবাদ জানিয়েছে হাসপাতাল কতৃপক্ষ।

মৃতার স্বামী বাবলু ঘোষ জানায়,জাহাঙ্গীর মেম্বার গংদের অতর্কিত হামলা এবং মারপিটে আমার স্ত্রী মারা গেছে।আমি জাহাঙ্গীর মেম্বারের ফাসি চাই। অপরদিকে অভিযুক্ত জাহাণ্গীর আলম মেম্বার জানান,বাবলু ঘোষ সহ তার ভাই বোনরা ২০১২ সালে ৭৭৮ দাগের ৬ শতক জমি বিক্রি করে।২ শতক জমির দখল দিলেও বাকি ৪ শতক জমির দখল দেয়নি।

এ ব্যাপারে রুহিয়া থানার ওসি প্রদীপ কুমার রায় জানান,জমি জমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় অনিতা রানী নামে এক গৃহবধূ মৃত্যুর খবর আমি শুনেছি।লিখিত অভিযোগ পেলে হত্যা মামলা রুজু করা হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য