ফুলবাড়ীতে নদির পাঁড় কেটে বালু উত্তোলন হুমকিতে ফসলি জমিদিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ছোট যমুনা নদির পাঁড় কেটে বালু উত্তোলন করায় হুমকিতে পড়েছে ফসলি জমির মাঠ। উপজেলা প্রশাসনের নিকট অভিযোগ করেও মিলেনি কোন প্রতিকার। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার রাজারামপুর ও জাফরপুর গ্রাম এলাকায়।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায বালু মহল ইজারাদার ইনু চৌধুরী ছোট যমুনা নদির বেলতলি ও গোপলপুর ঘাটের বালুমহল ইজারা নিলেও, সেখান থেকে বালু উত্তোলন না করে, রাজারামপুর- জাফরপুর মৌজার মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া ছোট যমুনা নদির উত্তর পাড়ে, জাফরপুর মৌজার পাঁড় কেটে বালু উত্তোলন করছে। এতেকরে নদির পাঁড় বিনষ্ট হয়ে নদি গর্ভে চলে যাচ্ছে। ফলে আগামী বর্ষা মৌসুমে নদির পাঁড়ের সাথে থাকা জাফরপুর মৌজার ফসলি জমি নদি গর্ভে বিলিন হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

ভুক্তভুগী জমির মালিক জাফরপুর গ্রামের বাসীন্দা প্রভাষক হামিদুল হকসহ জাফরপুর গ্রামের বাসীন্দারা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাননি বলে গ্রামবাসীরা অভিযোগ তুলেছে।

আবেদনকারী জাফরপুর গ্রামের বাসীন্দা প্রভাষক হামিদুল হক বলেন, বালুমহল ইজারাদার, তার নিদিষ্ঠ বালু মহল রেখে, নদির পাঁড় কেটে নদি তৈরী করছে। এতেকরে বর্ষাকালে তারসহ গ্রামবাসীর ফসলি জমি নদি গর্ভে বিরিন হয়ে যাবে।

এই ঘটনায় তিনি চলতি সনের ২০ অক্টোবর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন, কিন্তু এখন পর্যন্ত উপজেলা প্রশাসন কোন ব্যবস্থায় নেয়নি। এদিকে বালু মহল ইজারাদার ইমরুল হুদা চৌধুরী ইনু বলেন, নদির পাঁড় নয়, তার নিজেস্ব্য জাযগা কেটে বালু উত্তোলন করছেন।

এদিকে খোজ নিয়ে জানা গেছে,২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের জন্য উপজেলা দুটি বালু মহল ছোট যমুনা নদির গোলপুর ঘাট আতোয়ার রহমান মিন্টু ও বেলতরী ঘাট ইমরুল হুদা চৌধুরী ইজারা গ্রহন করেছে। সরকারী ভাবে ছোট যমুনা নদির গোপালপুর ও বেলতলী ঘাট বালু মহল হিসেবে ইজারা প্রদান করা হলেও, উপজেলার খয়েরবাড়ী, দৌলতপুর, লালপুর কুশলপুরসহ বিভিন্ন ঘাট থেকে অবৈদ্য ভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে।

এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুস সালাম চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে, তিনি গ্রামবাসীর অভিযোগ করার কথা স্বীকার করে বলেন, ইজারাকৃত জায়গা ব্যতিত বালু উত্তোলন অবৈদ্য, অল্প সময়ের মধ্যে অবৈদ্য বালু উত্তোলন কারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিবেন বলে তিনি জানান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য