ফ্রান্স থেকে স্বাধীন হওয়া প্রশ্নে নিউ ক্যালিডোনিয়ায় ভোট গ্রহণস্বাধীনতার প্রশ্নে গণভোটে অংশ নিচ্ছেন ফ্রান্সের নিউ ক্যালেডোনিয়া রাজ্যের বাসিন্দারা। রবিবার সকাল থেকেই রাজ্যের রাজধানী নওমিয়াতে সারিবদ্ধভাবে লাইনে দাঁড়িয়ে নিজেদের রায় দিচ্ছেন ভোটাররা। এ গণভোটে সিদ্ধান্ত হবে নিউ ক্যালেডোনিয়া ফ্রান্সের সঙ্গেই থাকবে নাকি স্বাধীন দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে।

নিউ ক্যালেডোনিয়ার মোট ১ লাখ ৭৫ হাজার ভোটার রবিবারের গণভোটে অংশ নেওয়ার সুযোগ পাবেন।

প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের নিউ ক্যালেডোনিয়া একটি প্রত্যন্ত দ্বীপ। কৌশলগত রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক অঞ্চল হিসেবে দ্বীপটি ফ্রান্সের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

নিউ ক্যালেডোনিয়ার আদিবাসী কনক জনগোষ্ঠীর আন্দোলনের প্রেক্ষিতে প্রায় দুই দশক আগে এই গণভোটের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল ফ্রান্স। সে অনুযায়ী রবিবারের গণভোটে অংশ নিচ্ছেন ভোটাররা।

নির্বাচনকে সামনে রেখে ফরাসি উপনিবেশ থেকে বের হয়ে আসার রায় দিতে জনগণের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছে স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠগুলো। অবশ্য জনমত জরিপ বলছে ভিন্ন কথা। এতে দেখা গেছে, উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মানুষই স্বাধীনতার বদলে ফ্রান্সের সঙ্গে থেকে যাওয়ার পক্ষে রায় দেবেন। কেননা, খোদ কনক জাতিগোষ্ঠীর অনেকেই ফ্রান্সের সঙ্গে থাকার পক্ষপাতী। এর বাইরে সেখানকার জাতিগত ইউরোপীয়ানদের মধ্যেও ফরাসি জাতীয়তাবোধ প্রবল। তারপরও গণভোটের চূড়ান্ত ফল কী হবে তা নির্ধারণ করবেন ভোটাররাই। ফ্রান্সের রাজ্য কিংবা স্বাধীন দেশ; এ দুয়ের মধ্যে একটিকে বেছে নিতে হবে তাদের।

প্রাকৃতিক সম্পদে সমৃদ্ধ অঞ্চলটির গণভোটের ফল ঘোষণার পর জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। সূত্র: বিবিসি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য