যুক্তরাষ্ট্রে ৮০০ ফুট গভীর খাদে পড়ে ভারতীয় দম্পতির মৃত্যুক্যালিফোর্নিয়ার ইয়োসেমিটি ন্যাশনাল পার্কে ৮০০ ফুট গভীর খাদে পড়ে ভারতীয় এক দম্পতির মৃত্যু হয়েছে।

গত সপ্তাহে ঘটনাটি ঘটেছে বলে মার্কিন গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানিয়েছে ভারতীয় বার্তা সংস্থা প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়া (পিটিআই) ।

২৯ বছর বয়সী বিষ্ণু বিশ্বনাথ ও ৩০ বছর বয়সী মীনাক্ষী মুর্তি ইয়োসেমিটি ন্যাশনাল পার্কের টাফট পয়েন্ট থেকে পড়ে যান।

সোমবার যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরাত ভারতীয় দম্পতি হিসেবে তাদের শনাক্ত করা হয় বলে জানিয়েছে স্যান ফ্রানিস্সকো ক্রনিকেল।

বনরক্ষীরা বৃহস্পতিবার টাফট পয়েন্টের নিচ থেকে এ দুজনের মৃতদেহ উদ্ধার করেন।

সাধারণত পর্যটকরা পার্কের এই পয়েন্টটি থেকেই ইয়োসেমিটি ভ্যালি, ইয়োসেমিটি ঝর্ণা ও এল কাপিতানের মতো মনোমুগ্ধকর স্থানগুলোর দৃশ্য উপভোগ করে থাকেন।

ভারতীয় এ দম্পতি পয়েন্টটি থেকে কীভাবে পড়ে গেলেন, সে সময়ে আসলে কী ঘটেছিল, তা জানতে অনুসন্ধান শুরু করেছেন তদন্ত কর্মকর্তারা।

“আমরা এখনো জানিনা তারা কী ভাবে পড়ে গিয়েছিলেন। কী ঘটেছিল তা বোঝার চেষ্টা করছি আমরা। হয়তো কখনোই জানতেও পারবো না; তবে যতটুকু দেখেছি, তাতে একে মর্মান্তিক পতন বলেই মনে হচ্ছে,” ইয়োসেমিটি ন্যাশনাল পার্কের মুখপাত্র জেমি রিচার্ডস এমনটাই বলেছেন বলে জানিয়েছে স্যান ফ্রান্সিসকো ক্রনিকেল।

এর আগে এক বিবৃতিতে ন্যাশনাল পার্ক সার্ভিস ২৫ অক্টোবর বিকালে টাফট পয়েন্টের ৮০০ ফুট নিচের খাড়া অংশ থেকে এক পুরুষ ও এক নারী পর্যটকের মৃতদেহ উদ্ধার অভিযান শেষ করার খবর নিশ্চিত করে। স্বল্প সময়ের এ অভিযানে ক্যালিফোর্নিয়া হাইওয়ে পেট্রলের হেলিকপ্টারের সহায়তাও নেওয়া হয়।

স্যান হোসেভিত্তিক প্রতিষ্ঠান সিসকোতে ব্যবস্থাপনা প্রকৌশলীর চাকরি পাওয়ার পর বিষ্ণু তার স্ত্রীকে নিয়ে নিউ ইয়র্ক থেকে থেকে ক্যালিফোর্নিয়ায় চলে আসেন। রোমঞ্চপ্রিয় এ দুই ভারতীয় একত্রে ‘হলিডেজ অ্যান্ড হ্যাপিলি এভারআফটারস’ নামে তাদের ঘোরাঘুরি সংক্রান্ত একটি ব্লগও চালাতেন।

বিষ্ণু ও মীনাক্ষী দুজনই সফটওয়ার প্রকৌশলী ছিলেন বলে জানিয়েছে স্যান ফ্রান্সিসকো ক্রনিকেল। ২০১৪ সালে তাদের বিয়ে হয়। বিষ্ণুর ফেইসবুক পেইজের কভারে যে ছবি আছে, তাতে তাদের দুজনকে গ্র্যান্ড ক্যানিয়নের খাড়া পর্বতে হাসিমুখে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে।

ফেইসবুকে দেওয়া পোস্টে দুই সাবেক শিক্ষার্থীর ‘দুর্ঘটনাজনিত প্রাণহানিতে’ শোক জানিয়েছে ভারতের চেঙ্গানুরের প্রকৌশল কলেজ। বিষ্ণু ও মীনাক্ষী দুজনই কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের ২০০৬-১০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন বলেও নিশ্চিত করেছে তারা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য