দিনাজপুরে পরিবহন শ্রমিকদের ৪৮ ঘন্টার কর্মবিরতির শেষ দিন অতিবাহিতদিনাজপুর সংবাদাতাঃ সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ কিছু ধারা সংশোধনসহ ৮ দফা দাবিতে ৪৮ ঘণ্টার কর্মবিরতির শেষ দিন অতিবাহিত হয়েছে। কর্মবিরতির শেষ দিনে সোমবার দিনাজপুর থেকে আন্তঃজেলাসহ দূরপাল্লার বাস-কোচ চলাচল বন্ধ ছিল। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েন যাত্রীরা। মঙ্গলবার ভোর ৬টায় ৪৮ ঘন্টার এই কর্মবিরতি শেষ হবে।

সোমবার (২৯ অক্টোবর) দিনাজপুর আন্তঃজেলার সব ক’টি রুটসহ ঢাকার সাথে বাস চলাচল পুরোপুরি বন্ধ ছিল। দিনাজপুর যাত্রিবাহী বাস, কোচ, মাইক্রোবাস, মালবাহি ট্রাক, ট্র্যাঙ্কলরি, ট্রাক্টরসহ অন্যান্য যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। আকস্মিক এই কর্মবিরতি ও ধর্মঘটের কারণে যাত্রীরা পড়েন চরম দুর্ভোগে। বাস না সবাইকে পায়ে হেঁটে ও রিক্সাভ্যানে চড়ে অনেককে গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে। তবে এতেও বাধার সম্মুখিন হতে হয়েছে অনেক যাত্রীকে।

সোমবার (২৯ অক্টোবর) বেলা ১১টা সরেজমিনে দিনাজপুর বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা গেছে, টার্মিনালে অনেক বাসগুলো সারিবদ্ধভাবে দাড়িয়ে রয়েছে। আন্তঃজেলাসহ ঢাকাগামী বাস-কাচের কাউন্টারগুলো বন্ধ ছিল। ওইদিন দিনাজপুর বাস টার্মিনালে অন্যান্য দিনের মত কোন যাত্রীকে দেখা যায়নি। টার্মিনাল ছিল একেবারেই ফাঁকা।

পরিবহন শ্রমিকদের কর্মবিরতি চলাকালে দিনাজপুর সরকারী কলেজ মোড়, বটতলা মোড়, রানীগঞ্জ মোড়সহ বিভিন্ন স্থানে কতিপয় পরিবহন শ্রমিক অটোরিক্সা, রিক্সাভ্যান চলাচলে বাধার সৃষ্টি করে। পরিবহন শ্রমিকদের বাঁশের লাঠি নিয়ে অটোরিক্সা চালকদের ধাওয়া করে রাস্তা হতে সরিয়ে দিতে দেখা গেছে। তবে ঘটনাস্থলে পুলিশ ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দের উপস্থিতির কারণে কোথাও কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি বলে জানা গেছে।

দিনাজপুর জেলা মটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি এম রফিক শ্রমিক নেতা জানান, সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮-এর কিছু ধারা সংশোধনসহ ৮ দফা দাবীতে পরিবহন শ্রমিকরা ৪৮ ঘন্টার কর্মবিরতি পালন করছেন। এই দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা ঘরে ফিরে যাবো না। এর মধ্যে আমাদের দাবী মানা হলে পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে পরবর্তি কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে। এর পর ৯৬ ঘন্টার কর্মবিরতি ঘোষণা করা হতে পারে। তার পরও যদি আমাদের দাবী মানা না হয় তাহলে অনির্দিষ্টকালের কর্মসূচী ঘোষণা করা হতে পারে বলে জানান তিনি।

দিনাজপুর জেলা ট্রাক ও ট্যাঙ্কলরি শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শ্রমিক নেতা মো. সাদাকাতুল বারী সাদা একই কথা জানালেন। তিনি বলেন, এই কর্মসূচী শেষ হলে পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে নতুন কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে। পরবর্তিতে ৯৬ ঘন্টার কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে। তার পরও আমাদের দাবী মানা না হলে অনির্দিষ্টকালের কর্মসূচী ঘোষণা করবে কেন্দ্রীয় কমিটি।

এদিকে পরিবহন শ্রমিকদের কর্মবিরতি চলাকালে যে কোন ধরনের বিশৃঙ্খলা ও নাশকতা এড়াতে অন্যান্য দিনের মত দিনাজপুর বাস টার্মিনালসহ শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পলিশ বাহিনীর সদস্য মোতায়েন ছিল।

উল্লেখ্য, পরিবহন শ্রমিকদের ৮ দফা দাবীর মধ্যে রয়েছে-সড়ক দুর্ঘটনাকে দুর্ঘটনা হিসেবে দেখে সকল মামলায় জামিনযোগ্য বিধান সন্নিবেশ করা, শ্রমিকের দন্ডে ৫ লক্ষ টাকার পরিবর্তে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত অর্থদন্ডের বিধান যুক্ত করা, সড়ক দুর্ঘটনা জটিলতার মামলার তদন্ত কমিটিতে শ্রমিক ও মালিক প্রতিনিধিকে অন্তর্ভুক্ত করা, ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা ৮ম শ্রেণির স্থলে ৫ম শ্রেণি নির্ধারন করা, কাজগপত্র চেকিং এর নামে সড়কে পুলিশের অহেতুক হয়রানী বন্ধ করা, ওয়েস্কেলে জরিমানার পরিমান কমানো ও শাস্তি বাতিল করা, আইনে কোন কোন ক্ষেত্রে অর্থদন্ডের পরিমান উল্লেখ না থাকায় জটিলতা সৃষ্টি হওয়ার সমূহ বিপদ থেকেছে, এটির সংশোধন এবং আলোচনার মাধ্যমে অন্যান্য আইন সংশোধনের উদ্যোগ নেয়া।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য