ফুলবাড়ীতে ১৮ মাস থেকে ৭ম শ্রেনীর ছাত্রীকে সৎপিতার ধর্ষনদিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ১৮ মাস থেকে আটক রেখে এক ৭ম শ্রেনীর ছঅত্রীকে ধর্ষন করেছে আকাশ চৌধুরী নামে ওই ছাত্রীর সৎপিতা। ধর্ষক আকাশ (৩০) কে গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা মালিবাগ থেকে আটক করেছে ফুলবাড়ী থানা পলিশ।

তবে পুলিশ বলছে আকাশ চৌধুরীর নিকট থাকা একটি জাতিয় পরিচয়পত্রে নাম আকাশ চৌধুরী পিতার নাম সেলিম চৌধুরী ও ঠিকানা বেতদিঘী ফুলবাড়ী দিনাজপুর লেখা থাকলেও, সেখানে এই নামে কেউ বসবাস করেনা। তার নিকটে থাকা পরিচয়পত্রটি ভূয়া হতেপারে। তার নামও ভূয়া হতে পারে।

ফুলবাড়ী থানার ওসি শেখ নাসিম হাবিব বলেন উপজেলার গড়পিং লাই গ্রামের সৈয়দ আরশেদ আলীর মেয়ে স্বামী পরিত্যাক্তা সৈয়দা মুক্তা বেগম ঢাকায় গার্মেন্ট ফেক্টরীতে চাকুরী করা সুবাদে পরিচয় হয় ধৃত আকাশের সাথে।

এরপর আকাশ নিজের পরিচয় গোপন রেখে মুক্তা বেগমকে বিয়ে করে সংসার শুরু কওে, তাদেও সংসাওে সিয়াম নামে একটি ৮ বছরের ছেলে রয়েছে। গার্মেন্টস এর চাকুরী ছেড়ে মুক্ত বেগম তার গ্রামের বাড়ী ফুলবাড়ী উপজেলার চলে আসলে, আকাশও তার সাথে এসে মুক্তা বেগমের বাবার বাড়ীতে বসবাস শুরু করে।

ওই বাড়ীতে বসবাস করতো মুক্তা বেগমের পুর্বের স্বামীর ঘরে জন্ম নেয়া ৭ম শ্রেনীর ছাত্রী এক মেয়ে। লম্বপট আকাশ গত ২২-০৪-২০১৭ তারিখে মুক্তা বেগমের মেয়ে ৭ম শ্রেনীর ছাত্রীকে ফুসলিয়ে অপহরন করে ঢাকায় নিয়ে যায়। এবং বিভিন্ন জায়গায় আটক রেখে তাকে ধর্ষন করে। এই ঘটনায় চলতি সনের ১ জুলাই ফুলবাড়ী থানায় একটি অপহরন মামলা দায়ের করে ওই ছাত্রীর মা মুক্তা বেগম।

এরই মধ্যে চলতি মাসের গত ১৪ তারিখে ওই ছাত্রী কৌশলে ঢাকা থেকে পালিয়ে আসলে, তাকে ফুলবাড়ী রেলওয়ে স্টেশন থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। উদ্ধার কৃত অপহৃতার দেয়া তথ্য মোতাবেক গত মঙ্গলবার ঢাকা মালিবাগ থেকে ধর্ষক সৎপিতা আকাশকে আটক করা হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আব্দুর রহমান বলেন অপহৃতার দেয়া তথ্য মোতাবেক ঢাকা মালিবাগ থাানার পুলিশের সহায়তায় ধর্ষক আকাশকে আটক করা হয়। ইতোপুর্বে উদ্ধারকৃত ধর্ষিতার মেডিকেল পরিক্ষা করা হয়েছে।

ধর্ষিতার মা মুক্তা বেগম বলেন আকাশ একজন প্রতারক সে কোন ধর্মের তার কোন ঠিক নাই, সে নিজেকে মুসলমান পরিচয় দিয়ে তাকে বিয়ে করেছিল। বিয়ের পর সে জানতে পাওে আকাশ মুসলমান ছিলনা তবুও সে তার সাথে ঘর সংসার করেছে। কিন্তু আকাশের মা তাকে দিয়ে দেহ ব্যবসা করার জন্য চাপ সৃষ্টি করেছিল সে কারনে তিনি ঢাকায় চাকুরী ছেড়ে চলে আসতে বাধ্য হয়েছিলেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য