রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, বিশ্বের বৃহত্তম তেল উৎপাদনকারী দেশ ইরান এবং ভেনিজুয়েলার বিরুদ্ধে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নীতি তেলের ক্রমবর্ধমান মূল্যে সরাসরি প্রভাব ফেলেছে।

গতকাল (বুধবার) মস্কোতে জ্বালানী বিষয়ক একটি ফোরামে দেয়া বক্তব্যে প্রেসিডেন্ট পুতিন বলেন, তেলের মূল্য বেড়ে যাওয়ার বিষয়ে ট্রাম্পের অভিযোগ সঠিক। তবে এর কারণ বের করার জন্য তার উচিত নিজের নেয়া পদক্ষেপের দিকে নজর দেয়া।

রুশ প্রেসিডেন্ট বলেন, “আমার সমকক্ষ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মনে করেন, তেলের মূল্য ব্যাপকহারে বেড়ে গেছে। ভালো কথা, হয়ত তার কথা কিছু ক্ষেত্রে সত্য। তেল কোম্পানিগুলোর কার্যক্রম সঠিকভাবে পরিচালনার জন্য এবং বিনিয়োগের ধারা অব্যাহত রাখার জন্য তেলের মূল্য ৬৫ থেকে ৭৫ ডলারের মধ্যে রাখার বিষয়ে আমরা একমত পোষণ করি।

তবে একটা কথা স্পষ্ট করতে চাই যে মার্কিন প্রশাসনের নীতির কারণেই তেলের মূল্য আজকের অবস্থানে এসেছে। ইরানের বিরুদ্ধে আমেরিকার একতরফা নিষেধাজ্ঞা, ভেনিজুয়েলার রাজনৈতিক সমস্যা এবং লিবিয়ার চলমান পরিস্থিতি প্রতি নজর দিলেই তেলের মূল্য বেড়ে যাওয়ার কারণ খুঁজে পাওয়া যাবে।”

সম্প্রতি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের তেলের মুল্যে বাড়নোর জন্য ২০১৬ সালে রাশিয়া এবং তেল রপ্তানিকারক দেশগুলোর সংগঠন ওপেকের মধ্যে সই হওয়া চুক্তির সমালোচনার জবাবে পুতিন এসব মন্তব্য করেন। ২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময়ে বিশ্বে তেলের উৎপাদন বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে এর মূল্য ব্যাপকহারে কমে গেলে রাশিয়া এবং ওপেকের মধ্যে ওই চুক্তি সই হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য