চিরিরবন্দরে প্রকল্পের বসতভিটা দখলকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের আঘাতে ১ জন নিহতঃ আহত ৫দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর চিরিরবন্দরে একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের জোরপূর্বক বসত বাড়ীতে ঘর নির্মান করার সময় বাধা প্রদান করলে প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ১ জন নিহত ও ৫ জন আহত হয়েছে। এঘটনায় পুলিশ ৬জনকে আটক করেছে।

বুধবার সকাল ১০টার দিকে চিরিরবন্দর উপজেলার উত্তর সুখদেবপুর মাছুয়াপাড়া বিন্যাকুড়ি বাজারের আশু চন্দ্র রায়ের বাড়ীতে এই হত্যা কান্ডের ঘটনা ঘটে। নিহত আশু চন্দ্র রায় (৪৫) উপজেলার বিন্যাকুড়ি বাজার সংলগ্ন মাছুয়াপাড়া গ্রামের গঙ্গাপ্রসাদ রায়ের ছেলে।

জানাযায়, দীর্ঘদিন ধরে আশু চন্দ্র রায় বিন্যাকুড়ি বাজরেরর মাছুয়া পাড়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করে আসছিল। ইসুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু হায়দার লিটন একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্প থেকে ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে বাদশা চন্দ্র রায়ের নামে একটি টিনের ঘর বরাদ্দ করেন।

সেই টিনের ঘরটি ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশে আশু চন্দ্র রায়ের ভিটায় ৬০/৭০ জন একত্রি হয়ে ঘর নির্মানের জন্য যায়। এসময় বাদশা চন্দ্র ও তার আত্মীয়-স্বজনরা বাধা প্রদান করলে একই গ্রামের বুধা চন্দ্র রায়ের তিন ছেলে লেবু চন্দ্র রায়, মধু চন্দ্র রায়, সাধু চন্দ্র রায, মানটু চন্দ্র রায়ের দুই ছেলে বাদশা চন্দ্র রায়, ডিপজল চন্দ্র রায়, অতুল চন্দ্র রায়ের দুই ছেলে আপন চন্দ্র রায়, তপন চন্দ্র রায়, একই এলাকার মুনছুর আলী, দালাল রমজান আলী, ফারুক হোসেন সহ লাঠিয়াল বাহিনী আশু চন্দ্রের উপর হামলা চালিয়ে লোহার রড দিয়ে মাথায় আঘাত করলে গুরত্বর অবস্থায় এলাকাবাসী উদ্ধার করে এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল হাসপাতাল নেয়ার পথে সে মারা যায়।

চিরিরবন্দর থানার ওসি হারেসুল ইসলাম জানান, বসত ভিটায় ঘর নির্মানকে কেন্দ্র করে একজন নিহত হওয়ার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাস্থল থেকে আপন চন্দ্র রায়, সাধু চন্দ্র রায়, বুধা চন্দ্র রায়, লেবু চন্দ্র রায়ের স্ত্রী লক্ষèী রানী, সাধু চন্দ্র রায়ের স্ত্রী রতœা রানী ও হরেন চন্দ্র রায়ের স্ত্রী পুস্পরানী কে আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে চিরিরবন্দর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য