বড়পুকুরিয়া তাপ বিদুৎ কেন্দ্র শ্রমিকদের অনিদিষ্ঠ কালের অবস্থান ধর্মঘট শুরুষ্টাফ রিপোর্টারঃ দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের তৃতীয় ইউনিটের উন্নায় কাজের শ্রমিকরা, উৎপাদন কাজে নিয়োগের দাবীতে তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের প্রধান ফটকে অনিদিষ্ট কারের অবস্থান কর্মসূচি শুরু করেছে।

আজ বুধবার সকাল ৮ টা থেকে আন্দোলনরত শ্রমিকরা, তাপ বিদুৎ কেন্দ্রটির প্রধান ফটকে অবস্থান নিয়ে এই কর্মসূচি শুরু করেন।

গত ১৯ সেপ্টেম্বর বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি মোড় বাজারে সংবাদ সম্মেলন করে ২৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আল্টি মেটাম দিয়ে আন্দোলনকারী শ্রমিকরা এই কর্মসূচি ঘোষনা করেছিলেন।

আন্দোলনরত শ্রমিকরা তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের প্রধান ফটকে অবস্থান নেয়ায়, তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের ভিতর কেউ আসা যাওয়া করতে পারেনি একমাত্র আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্য ছাড়া কোন কোন মটর যানও তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের ভিতর-বাহির করতে দেখা যায়নি।

উল্লেখ্য আন্দোলনকারী শ্রমিকরা বড়পুকুরিয়া তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের তৃতীয় ইউনিটের নির্মান কালিন উন্নায়ন শ্রমিক হিসেবে কর্মরত ছিল, তৃতীয় ইউনিটের উন্নায়ন কাজ শেষে উৎপাদন কাজে নিয়োগ দেয়ার কতৃপক্ষের প্রতিশ্রতি থাকলেও, তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের চিনা ঠিকারী প্রতিষ্ঠান হারবীন ইন্টার ন্যাশনাল, তাদেরকে নিয়োগ না দিয়ে বাহির থেকে শ্রমিক নিয়োগ দেয়া শুরু করলে তারা আন্দোলনে নামে। এবং গত এক বছর থেকে তারা উৎপাদন কাজে নিয়োগের জন্য আন্দোলন করে আসছে।

শ্রমিক আন্দোলন পরিচালনাকারী কমিটির সাধারন সম্পাদক আবু সাঈদ বলেন, আমাদের তৃতীয় ইউনিটে নিয়োগ দেয়ার তাপ বিদুৎ কতৃপক্ষের প্রতিশ্রুতি থাকলেও , কতৃপক্ষ আমাদের নিয়োগ না দিয়ে, বাহির থেকে অদক্ষ ব্যাক্তিদের শ্রমিক পদে নিয়োগ দিয়ে নিয়োগ বানিজ্য শুরু করেছে তাপ বিদুৎ কতৃপক্ষ।

শ্রমিক আন্দোলনকারী কমিটির সভাপতি হাবিবুর রহমান বলেন আমাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক মহদয় ও উপজেলা প্রশাসক আমাদেরকে নিয়োগ দেয়ার জন্য তাপ বিদুৎ কতৃপক্ষকে কয়েক দফা সুপারিশ করলেও তাপ বিদুৎ কতৃপক্ষ সেই সুপারিশ গ্রহন করেনি। তাই এখন আন্দোলন ছাড়া আর কোন উপায় নেই। এজন্য তারা নিযোগ না হওয়া পর্যন্ত অনিদিষ্ঠ কালের জন্য আন্দোলনে নেমেছেন।

এদিকে বড়পুকুরিয়া তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাকিম এই আন্দোলনকে বহিরাগত আন্দোলন হিসেবে চিহ্নিত করে বলেছেন, আন্দোলন কারীরা তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের কোন শ্রমিক নয়, অথছ তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের প্রধান ফটকে অবস্থান নিয়ে বিদুৎ কেন্দ্রটির কাজের অসুবিদার সৃষ্টি করেছে।

প্রধান প্রকৌশলী আরো বলেন আন্দোলনের কারনে বিদুৎ উৎপাদনে কোন প্রভাব পড়েনি। বিদুৎ কেন্দ্রের উৎপাদন সাভাবিক রয়েছে, তবে তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের ভিতরে কর্মরত শ্রমিকদের প্রবেশ করতে বাধা প্রধান করলে সেক্ষেত্রে প্রভাব পড়তে পারে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য