পঞ্চগড়ে বিশ্ব পর্যটন দিবস পালিতপঞ্চগড়ের তেতুলিয়ায় নানা আয়োজনে বিশ্ব পর্যটন দিবস পালিত।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১:৩০ মি. জেলার তেতুলিয়া উপজেলার চৌরাস্তায় ট্রাভেল এন্ড ট্যুরিজমের আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেনে উপস্হিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান  জনাব রেজাউল করিম শাহিন।

উক্ত অনুুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক  কাজী মাহমুদুর রহমান ডাবলু, তেতুলিয়া ট্রাভেল এন্ড ট্যুরিজম এর প্রতিষ্ঠাতা সালেহ আহাম্মেদ দোয়েলল, ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি তুহিন, ট্রাভেল এন্ড ট্যুরিজম এর আহবায়ক এম মোবারক হোসেন, উৎস সংগঠেনের  সাধারন সম্পাদক  এম এ হান্নান, প্রবাসী টিভি উপজেলা প্রতিনিধি আহসান হাবীবসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

স্বাগত বক্তব্যে উপজেল আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ও ‘আবাসিক কাজী ব্রাদাস ‘ মালিক বলেন, দেশের উত্তর সীমান্ত তেঁতুলিয়া এখন বাংলাদেশের অন্যতম পর্যটন স্পট।   উত্তরের হিমালয়কন্যা পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া।   যেখানে চোখ মেললে অতি কাছ থেকে দেখা যায় আকাশছোঁয়া হিমালয় পর্বত, কাঞ্চনজঙ্ঘা ও দার্জিলিং।   এছাড়া সীমান্ত জুড়ে রয়েছে নান্দনিক সৌন্দর্য।  গত বছরে প্রচুরর পরিমানে পর্যটক আসায়
সরকারী -বেসরকারি ভাবে পরিচালিত  আবাসিক গুলোতে জায়গা না পেয়ে সমস্যা হয়েছিল। তাই পর্যটকদদের সুুবিধার জন্য নতুুুন  করে আবাসিক গড়ে উঠেছে।

প্রধান অতিথি রেজাউল করিম শাহিন তার বক্তব্যে বলেন, স্বাধীনতার তীর্থভূমি মুক্তাঞ্চল, চা ও পাথর শিল্প, হাজার বছরের শিল্প সংস্কৃতি, প্রত্মতত্ত্বনগরী, তেঁতুলিয়ার নামকরণ, দুইশত বছরের ইংরেজ আমলের স্থাপত্য এবং বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে ইমিগ্রেশন সুবিধায় ভারত, নেপাল, ভুটান, চীন ভ্রমনের পর্যটন শিল্প অঞ্চল রূপ নিচ্ছেন তেঁতুলিয়া।

প্রতি বছর শতশত দেশি-বিদেশী পর্যটক ভ্রমন করে ছুটে আসেন তেঁতুলিয়ায়।   উৎসুক হয়ে জানতে চান তেঁতুলিয়ার ইতিহাস-ঐতিহ্য, দেখতে চান দর্শনীয় স্থান।   কিন্তু সঠিক তথ্যদাতার বা ট্যুরিস্ট গাইডের অভাবে তারা জানতে পারেন না সীমান্তবর্তী তেঁতুলিয়া সম্পর্কে পর্যটকদের সেই সেবা দিতেই এই উদ্যোগ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য