বিশ্ব নদী দিবসে দেওনাই নদী উন্মুক্তের দাবীতে ডোমারে মানববন্ধনবিশ্ব নদী দিবসে নীলফামারীর ডোমার উপজেলায় দেওনাই নদী সবার জন্য উন্মুক্তের দাবীতে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কয়েছে জেলেসহ কয়েক হাজার নারী-পুরুষ। রবিবার হরিণচড়া ইউনিয়ন এলাকার দেওনাই নদীর ধারে ওই কর্মসুচির আয়োজন করে দেওনাই নদী সুরক্ষা কমিটি।

সকাল ১১ টার দিকে নদীর ধারে প্রায় এক কিলোমিটার মানববন্ধনে কমিটির আহ্বায়ক আবদুল ওয়াদুদের সভাপতিত্বে এ সময় সদস্য সচিব আরিফুর রহমান মিলন, ইউপি সদস্য আবদুল ওয়াহেদ, শিক্ষক আবদুল জলিল, এলাকাবাসী আলহাজ¦ আবদুল জলিল, আতিকুর রহমা মনি, মৎস্যজীবি আবদুল খালেক, মো: লাবু প্রমূখ বক্তব্য রাখেন। শেষে তারা নদী উন্মক্তের দাবীতে নদীর ধারেই বিভিন্ন ম্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করে।

বক্তরা বলেন, নদী কখনো জলমহাল হতে পারে না। কিছু অসাধু ব্যক্তি নদীতে নাম মাত্র মাছ ছেড়ে দিয়ে দেওনাই নদী দখল করেছে। অথচ এ নদীটির উপর শত শত জেলে পরিবার নির্ভরশীল। এ নদীর পানিই আশপাশ্বের কৃষিকাজে সেচের একমাত্র ভরসা। বক্তরা অবিলম্বে নদীটিকে দখলদারদের হাত হতে রক্ষা করে উন্মুক্ত করার দাবী জানান।

প্রসঙ্গত, গত চার মাস হতে সবুজপাড়া মৎস্য চাষী সমবায় সমিতির নামে কিছু অসাধু ব্যক্তি নদীটি দখল করে রাখে। নদীর উপর নির্ভরশীল জেলেরা নদীতে মাছ ধরতে গেলে কয়েক দফায় জেলা ও দখলদার মৎস্য সমিতির সদস্যদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এরপ্রেক্ষিতে জেলেদের নামে দখলদাররা একটি মামলাও করেছে। এর প্রেক্ষিতে ডোমার ও নীলফামারী দুই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নদীতে সকলের জন্য মাছ স্বিকার নিষিদ্ধ করে প্রশাসনের পক্ষ হতে মাছ উত্তোলন করে সরকারী কোষাগারে টাকা জমা করে।

সাধারন মানুষজনের প্রশ্ন নদী কি মৎস্য চাষীদের জন্য মাছ চাষের জন্য বরাদ্ধ? নাকি সবার জন্য উন্মুক্ত?

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য