সৈয়দপুরে পুলিশ স্বামীর নির্যাতনে অন্তঃসত্বা স্ত্রী হাসপাতালেমোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) থেকেঃ পুলিশ কনস্টেবল স্বামীর দাবীকৃত যৌতুকের ৫ লাখ টাকা প্রদানের ব্যর্থ হওয়ায় স্ত্রী জিনাত সুলতানা দোয়েলের (২১) উপর চালানো হয়েছে অমানবিক নির্যাতন। থেতলে দেয়া হয়েছে ওই বধুর সর্বশরীর। শুক্রবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাতে ঘটনা ঘটেছে সৈয়দপুর শহরের ইসলামবাগ শেরু হোটেল সংলগ্ন এলাকায়। আহত বধু বর্তমানে ১০০ শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এলাকাবাসী জানান, ২০১৬ সালের ২৬ মে গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জের বামনডাঙ্গা গ্রামের আবু রুশত শুভর মেয়ে জিনাত সুলতানা দোয়েলের বিয়ে হয় সৈয়দপুর শহরের ইসলামবাগ শেরু হোটেল সংলগ্ন আতাউর রহমানের ছেলে কনস্টেবল আমিনুর রহমান রনির। ওই সময় মেয়ের সুখের কথা ভেবে নগদ ৫০ হাজার টাকা সহ আসবাবপত্র দেওয়া হয় দোয়েলকে।

বিয়ের পর পরই কনস্টেবল রনির বদলী হয় আশুলিয়ার বেপজায়। সেখানে তারা ৬ মাস বসবাসের পর থেকেই কনস্টেবল রনি পরকিয়ায় জড়িয়ে পড়েন। ওই পরকিয়া প্রেমের কারণে স্ত্রী গর্ভের ৪ মাসের বাচ্চাও নষ্ট করা হয়। পরে স্বামীর পরকিয়ার সংবাদ জানতে পেরে প্রতিবাদী হয়ে উঠায় দোয়েলের উপর শুরু হয় শারীরিক নির্যাতন।

বলা হয়, যৌতুকের ৫ লাখ টাকা না দিলে পরকিয়া প্রেমিকাকে বিয়ে করবে সে। এরপরও মুখ বন্ধ করে সংসার করতে থাকে দোয়েল। কিন্তু যৌতুক লোভী স্বামী স্ত্রী দোয়েলকে যৌতুকের টাকা আনার চাপ দিতেই থাকে। শুধুমাত্র যৌতুক না দেয়ার কারণেই দোয়েলের গর্ভের দুটি সন্তান নষ্ট করা হয়েছে।

স্ত্রী দোয়েল জানায়, গত শুক্রবার (২১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে তার স্বামী তাকে তার বাবার বাড়ী থেকে পূর্ণরায় ৫ লাখ টাকা আনার চাপ দিতে থাকে। কিন্তু বাবার অসচ্ছল সংসার থেকে এত টাকা আনতে পারবেনা জানালে শারীরিক অত্যাচার বেড়ে যায়। এক পর্যায়ে স্ত্রী দোয়েলের সর্বশরীর থেতলে দিয়ে ঘরের ভিতর আটকিয়ে রাখা হয় তাকে।

ওই সময় দোয়েলের চিৎকারে এলাকাবাসী ঘটনাস্থল ছুটে আসেন। এক পর্যায়ে ঘটনাটি পুলিশকে জানালে সৈয়দপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল উপস্থিত হয়ে আহত দোয়েলকে উদ্ধারের পর স্থানীয় ১০০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করানোর পরামর্শ দেন। ওই পরামর্শের ভিত্তিতে এলাকাবাসী আহত দোয়েলকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রেখেছেন।

এ বিষয়ে কথা হয় কনস্টেবল রনি জানান, যৌতুকের অভিযোগ সম্পন্ন মিথ্যা। তার স্ত্রী দোয়েলের মাথা কিছুটা খারাপ হয়েছে। মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে তার সম্মান ক্ষুন্ন করার অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে জানান তিনি।

সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহজাহান পাশা জানান, সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থি হয়ে আহত দোয়েলকে উদ্ধার করে। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য