কুড়িগ্রামে দুই শিক্ষার্থী হত্যাকারীদের বিচারের দাবীতে মানববন্ধনকুড়িগ্রামে দুই শিক্ষার্থী হত্যাকারীদের বিচারের দাবীতে মানববন্ধন করেছে আমিন উদ্দিন আহমেদ দাখিল মাদরাসার শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে মাদরাসা চত্বর থেকে বিক্ষোভ মিছিল করে তারা আমিন বাজারে সমবেত হয়। পরে কুড়িগ্রাম-চিলমারী সড়কে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন করে।

মানববন্ধনে আমিন উদ্দিন আহমেদ দাখিল মাদরাসার ৮ম শ্রেনীর ছাত্রী সেলিনা ও ভোকেশনাল স্কুল এন্ড কলেজের ৯ম শ্রেনীর ছাত্র জাহাঙ্গীর আলমের প্রকৃত হত্যাকারীদের গ্রেফতার করে বিচারের দাবীতে মানব বন্ধন করে।

এদিকে ঐ দুই শিক্ষার্থী হত্যাকান্ডের ঘটনায় ৪জনকে আটক করা হয়েছে। হত্যাকান্ডের শিকার ঐ দ্ইু কিশোর শিক্ষার্থীর মোবাইল ফোনের কল লিষ্ট ধরে তাদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

আটককৃতরা হলেন, সদর উপজেলার কৃঞ্চপুর দক্ষিন ডাকুয়াপাড়া গ্রামের কেরামত আলীর পুত্র মুকুল মিয়া (৩২), একই গ্রামের হায়দার আলীর পুত্র সবুজ মিয়া (৩০), দক্ষিন কল্যাণ ধুলাউড়া গ্রামেরর আছির উদ্দিনের পুত্র মমিন মিয়া (৩২) ও পুর্ব কল্যাণ ভোগরাম গ্রামের আব্দুল জলিলের পুত্র মো: সাজু মিয়া (২৯) উল্লেখ্য বুধবার সকালে কুড়িগ্রামের বিসিক শিল্প এলাকায় রেল লাইনের পাশে নালিয়ার দোলায় একটি পরিত্যাক্ত সেচ পাম্প ঘরের পাশ থেকে জাহাঙ্গীর আলম (১৬) ও সেলিনা আক্তার (১৫) নামের দুই শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত জাহাঙ্গীর আলম সদর উপজেলার বেলগাছা ইউনিয়নের নাগদার পাড় গ্রামের সৈয়দ আলীর পুত্র এবং সেলিনা কুড়িগ্রাম পৌরসভার ডাকুয়াপাড়া গ্রামের জাবেদ আলীর কন্যা। তাদের দুজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল।

এব্যাপারে কুড়িগ্রাম সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রওশন কবির জানান, আমার প্রাথমিকভাবে ধারনা করছি এটি একটি হত্যাকান্ড। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে বিষয়টি পরিষ্কার হওয়া যাবে। নিহত সেলিনার পিতা জাবেদ আলী কুড়িগ্রাম সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে। আমরা বিভিন্ন তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে ৪ জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য