ভিডিও কনফারেন্সে ভারত বাংলাদেশ মৈত্রী পাইপলাইন উদ্ভোধনদিনাজপুর সংবাদাতাঃ ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী পাইপলাইন নির্মান কাজের উদ্বোধন উপলক্ষে দিনাজপুরের পার্বতীপুরে ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দেন বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে জ্বালানি তেল পরিবহনে পাইপলাইন নির্মাণ হতে যাচ্ছে। জ্বালানি তেল আমদানির জন্য শিলিগুড়ি থেকে পার্বতীপুর পর্যন্ত ১৩০ কিলোমিটার দীর্ঘ ‘বাংলাদেশ-ভারত ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইনের’ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করলেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী।

মঙ্গলবার বিকেল ৫টায় দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী পাইপলাইন নির্মান কাজের উদ্বোধনকালে উভয় দেশের প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্স অনুষ্ঠান উপলক্ষে পাইপলাইনের বাংলাদেশ অঞ্চলের পার্বতীপুরে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে জ্বালানী মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব রতন চন্দ্র পন্ডিত, পেট্রোবাংলার যুগ্ম সচিব আলতাফ হোসেন চৌধুরী, জেলা প্রশাসক ড. আ ন ম আবদুছ ছবুর, পুলিশ সুপার সৈয়দ আবু সায়েম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইমাম চৌধুরী, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী এটিএম মাসুদ রানা, চেম্বারের সভাপতি সুজাউর-রব-চৌধুরী, পার্বতীপুর পৌর মেয়র এজেড মেনহাজুল হক, ইউএনও রেহানুল হক, আওয়ামী লীগ নেতা হাফিজুল ইসলাম প্রামানিক ও রেজাউল করিমসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

ভারতের শিলিগুড়ি থেকে বাংলাদেশের পার্বতীপুর পর্যন্ত ১৩০ কিলোমিটার মৈত্রী পাইপলাইনে ডিজেল সরবরাহ করা হবে। বাংলাদেশ অংশে ১২৫ কিলোমিটার ও ভারতীয় অংশে ৫ কিলোমিটার পাইপ লাইন নির্মান করা হবে।

পাইপলাইনের ব্যাস ১০ ইঞ্চি। বছরে ১০ লক্ষ মেট্রিক টন ডিজেল পরিবহন ক্ষমতা সম্পন্ন পাইপলাইন নির্মানে ব্যয় হবে প্রায় ৫২০ কোটি টাকা। এর মধ্যে ভারতের ঋণ সহায়তা ৩০৩ কোটি রুপি ও বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের ১৫০ কোটি টাকা।

ভারতের আসাম রাজ্যের নুমালিগড় রিফাইনারী লিমিটেড থেকে পার্বতীপুরের বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের ডিপোতে ডিজেল সরবরাহ করা হবে। পাইপলাইন নির্মানের সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০ মাস।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য