সাঘাটা ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনের কার্যক্রম শুরু হচ্ছে নাপ্রায় দুই বছর আগে সাঘাটা উপজেলা ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনের ভবন নির্মিত হলেও এখনো কার্যক্রম শুরু করা হয়নি। ফলে সহজে এ উপজেলায় অগ্নিকান্ডের কবল থেকে বাড়ীঘর ও যানমালসহ অন্যান্য সম্পদ রক্ষা করা সম্ভব হচ্ছে না।

সূত্র মতে, দেশের গুরুত্বপূর্ণ ১৫৬টি উপজেলা সদরে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ষ্টেশন স্থাপন প্রকল্পের আওতায় সাঘাটা উপজেলায় এর ভবন নির্মাণ করা হয়। প্রায় দুই বছর আগে ভবনের নির্মাণ কাজ শেষ হলেও ভবনটি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর না করায় ফায়ার সার্ভিসের কার্যক্রম শুরু করা যাচ্ছে না বলে জানানো হয়েছে। এতে ফায়ার সার্ভিসের সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে উপজেলার দুই লক্ষাধিক মানুষ।

গণপূর্ত বিভাগ থেকে জানা গেছে, সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়া সরকারী ডিগ্রী কলেজ থেকে হাটভরতখালী সড়কে কালপানি গ্রামে প্রায় ২ কোটি ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ষ্টেশনের ভবনের কাজ শুরু করা হয় গত ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে।

যথাসময়ে নির্মাণ কাজ শেষ করাও হয়েছে। এলাকাবাসী জানায় বর্তমানে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটলে সহজে ক্ষয়ক্ষতি রোধ করা সম্ভব হয় না। কারণ দূরদুরান্ত থেকে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন আসতে দেরি হওয়ায় পুরে ছাই হয়ে যায় ধনসম্পদ। তাই অতি দ্রুত সাঘাটা ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনের কার্যক্রম চালু করার দাবি জানান ভূক্তভোগীরা।

গাইবান্ধা ফায়ার সার্ভিস অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা সদরে স্থাপিত ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন গুলোতে একজন ষ্টেশন অফিসার, একজন সাব ষ্টেশন অফিসার, দুইজন লিডার, ড্রাইভার পদে চারজন, ফায়ারম্যান পদে ষোল জন, বাবুর্চি একজন, সহঃবাবুর্চি একজন ও ঝাড়–দার পদে একজন করে জনবল থাকার নিয়ম থাকলেও সাঘাটায় সকল পদই শূণ্য রয়েছে। উপ-সহকারী পরিচালক জানান, নির্মাণকৃত ভবন আমরা এখনও বুঝে পাইনি।

তবে আশা করছি, খূব শিঘ্রই ভবন বুঝে পাব এবং সাঘাটা ফায়ার সার্ভিস কার্যক্রম শুরু করতে পারব।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য