বাংলাদেশের একমাএ চার দেশীয়ও বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের বিল পরিশোধ না করায় ভুটানের শতাধিক ট্রাক আটকা পড়েছে। এতে করে বন্দরে সৃষ্টি হয়েছে অচল অবস্থা।

বিগত ছয়দিন ধরে পণ্য লোড-আনলোড বন্ধ থাকায় ভুটানের ট্রাকচালকদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। বন্দর সংরক্ষিত এলাকায় বিরাজ করছে উত্তেজনা।

বন্দর সূত্রে জানা যায়, সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টরা বাংলাবান্ধা ল্যান্ডপোর্ট লিমিটেডের বকেয়া পরিশোধ না করায় এ অবস্থা তৈরি হয়েছে। সিঅ্যান্ডএফ এর কিছু এজেন্ট বন্দরের প্রায় আড়াই কোটি টাকার বিল বকেয়া রেখেছেন।

তাই বন্দর কর্তৃপক্ষ সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টদের নতুন করে আমদানি করা পণ্যে বন্দরের বিল নগদ টাকা পরিশোধ করতে বললে এ অচল অবস্থা সৃষ্টি হয়।

ভুটান থেকে আমদানি করা ১০৩টি ট্রাকের পাথর আনলোড না করায় প্রায় দেড় শতাধিক ট্রাকচালক গত বৃহস্পতিবার থেকে বন্দরে আটকা পড়েছেন। এদিকে ভুটানের গাড়ীচালকদের সাথে কথা বলে যায় চলমান অবস্হার জন্য খাওয়া-দাওয়ার প্রচন্ড সমস্যা হচ্ছ।

বন্দরের ম্যানেজার মামুন সোবহান জানান, ১২/১৩ জন সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট তাদের দুই কোটি ৪৭ লাখ ৯৪ হাজার ৭৪০ টাকা বকেয়া রেখেছেন। নগদ টাকা (ট্যারিফ) জমা করা সরকারি নিয়ম।

আগের টাকা বকেয়া এখনই পরিশোধ না করলেও বর্তমানে যে বাণিজ্য হবে তার জন্য নগদ টাকা জমা দিতে হবে। এখন নগদে বিল দিলে পণ্য লোড-আনলোড করতে দেয়া হবে। না দিলে পণ্যসহ ট্রাক বন্দরে আটকা থাকবে।

এ বিষয়ে কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকতা জাকির হোসেন তাহের জানান, এটি সিঅ্যান্ডএফের বিষয়, আমাদের করার কিছুই নেই।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য