বিতর্কিত এক্সিট ভিসা ব্যবস্থা বাতিল করলো কাতারকাতারে কর্মরত বিদেশি শ্রমিক ও কর্মীদের বেশিরভাগই এখন থেকে ‘এক্সিট পারমিট’ বা প্রস্থান ভিসা ছাড়াই ছুটিতে বা স্থায়ীভাবে দেশে ফিরতে পারবেন। মঙ্গলবার (৪ সেপ্টেম্বর) দেশটির সরকার অভিবাসী শ্রমিকদের জন্য বিতর্কিত এক্সিট ভিসা ব্যবস্থা বাতিল করার পর এ সুযোগ তৈরি হয়েছে।

এর ফলে দেশে যেতে নিয়োগকর্তার মর্জির উপর কর্মীদের নির্ভরতা আর থাকছে না। কাতারের এ পদক্ষেপকে ‘তাৎপর্যপূর্ণ’ বলে উল্লেখ করেছে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও)। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদন থেকে এসব কথা জানা গেছে।

কাতারে অভিবাসী শ্রমিকের সংখ্যা ১৬ লাখ। বিশ্বকাপ ২০২২ আয়োজনের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই শ্রম আইন নিয়ে আন্তর্জাতিক চাপ এবং নজরদারির মধ্যে রয়েছে দেশটি। কাতারের শ্রম ব্যবস্থার সমালোচকরা দীর্ঘদিন ধরেই এক্সিট ভিসা ব্যবস্থা নিয়ে আপত্তি জানিয়ে আসছিলেন।

এ ভিসা ব্যবস্থাকে বিপুল পরিমাণ অভিবাসী শ্রমিকদের দমন-নিপীড়নের প্রধান কারণ হিসেবে দেখিয়ে আসছেন তারা। এক্সিট ভিসা ব্যবস্থার আওতায় কাতার ছাড়ার আগে কর্মীদের নিজ নিজ নিয়োগদাতার অনুমোদন নিতে হতো। তবে এবার সে ব্যবস্থা বাতিল করা হয়েছে।

৪ সেপ্টেম্বর কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানি এক্সিট ভিসা ব্যবস্থা বাতিল করে নতুন আইনে অনুমোদন দিয়েছেন। কাতারের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থাকে উদ্ধৃত করে রয়টার্স জানিয়েছে, ১৩ নং আইন হিসেবে নতুন আইনটি অনুমোদন করা হয়েছে। বিদেশি শ্রমিকদের প্রবেশ, প্রস্থান ও আবাসনকে নিয়ন্ত্রণ করে পূর্ববর্তী আইনে যে ধারাগুলো যুক্ত ছিল তা সংশোধন করা হয়েছে।

কাতারে অনুমোদিত নতুন আইনকে স্বাগত জানিয়েছে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও)। সংস্থাটির দোহা কার্যালয় থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, বেশিরভাগ অভিবাসী শ্রমিক এখন নিয়োগকারীর অনুমতি ছাড়াই দেশ ছাড়তে পারবেন। আইএলও’র দোহা কার্যালয়ের প্রধান হুতান হোমায়নপোর রয়টার্সকে বলেন, ’১৩ নম্বর আইনকে আইএলও স্বাগত জানাচ্ছে। কাতারের অভিবাসী শ্রমিকদের জীবনের ওপর এর সরাসরি ও ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।’

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য